এশিয়া কাপে থাকছে দশর্কদের ‘চ্যালেঞ্জ’!

asia
সমাজের কথা ডেস্ক॥ স্টেডিয়ামের ‘প্রাণ’ হলো দর্শক। স্বাগতিক দেশের সেই দর্শকই শক্তি। গ্যালারিভর্তি হাজারো দর্শকদের উচ্ছ্বাস সবসময়ই অনুপ্রানিত করে মাশরাফি-সাকিব-মুশফিকদের। ঘরের মাঠের টুর্নামেন্ট কিংবা দ্বিপাক্ষিক সিরিজ শেষে ক্রিকেট পাগল বাংলাদেশের দর্শকদের এ জন্য কৃতজ্ঞতা জানাতে কখনো ভুল করেন না ক্রিকেটাররা।
২০১৫ সালে ঘরের মাঠে টানা তিনটি ওয়ানডে সিরিজ (পাকিস্তান, ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা) সফলভাবে শেষ করার পর মুশফিকুর রহিম যেমন বলেছিলেন, ‘অনেক সময় দর্শকের প্রত্যাশা দেখে মনে হয়, আমাদের ভেতরে অবশ্যই কিছু না কিছু আছে। এ জন্যই তারা প্রত্যাশা করছে।’
ঘরের চেনা মাঠে দর্শক সবসময়ই প্রেরণা যোগায় ক্রিকেটারদের। সেটা অকপটে স্বীকারও করেন ক্রিকেটাররা। মাঠের ১১ জনকে সামনের দিকে যেন টেনে নিয়ে যান দর্শকরা! ক’দিন আগে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের কোয়ার্টার ফাইনাল, সেমিফাইনালে মিরাজবাহিনীর খেলা দেখতেই তো ভরে গিয়েছিল শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়াম। যুব বিশ্বকাপ শেষ হতেই এ মাঠে এবার শুরু হচ্ছে বড়দের টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটের এশিয়া কাপ। স্বাগতিক বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান ও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে বাছাইপর্ব থেকে উঠে আসা একটি দল খেলবে মূলপর্বে।
এই টুর্নামেন্টকে ঘিরে দর্শকদের মাঝে এখনই শুরু হয়ে গেছে উন্মাদনা। ম্যাচের টিকিট কোথায়, কিভাবে পাওয়া যাবে-এ নিয়ে অনেকেরই কৌতুহলি জিজ্ঞাসা! এমনটা অবশ্য স্বাভাবিকই। এশিয়ার ‘বিশ্বকাপ’ যে এটি! দর্শকদের বাড়তি আগ্রহ থাকারই কথা। শুধু বাংলাদেশের ম্যাচকে ঘিরেই নয়, এশিয়ার মর্জাদাপূর্ন এ টুর্নামেন্টে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের ম্যাচকে ঘিরেও আছে দর্শকের আগ্রহ।
এশিয়ার গতবারের চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কাকে ঘিরেও আগ্রহের কমতি নেই দর্শকের মনে। স্বাগতিক বাংলাদেশসহ অন্যান্য প্রিয় দলের খেলা দেখতে তাই আগ্রহের কমতি নেই দর্শকদের মনে। হোম অব ক্রিকেটের আশেপাশে আড্ডারত স্কুল, কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের আড্ডায় বেশ গুরুত্ব পাচ্ছে ২৪ ফেব্রয়ারি থেকে শুরু হতে যাওয়া টি-২০ ফরম্যাটের এ আসর।
তবে বিপত্তি এক জায়গায়, সোনার হরিন টিকিট সংগ্রহে এবার নামতে হবে যথারীতি যুদ্ধে। বাংলাদেশের ম্যাচের টিকিট পেতে ‘লড়াই’ চালাতে হবে দর্শকদের-এ ধারনা সদ্যসমাপ্ত কয়েকটি সিরিজ থেকেই মেলে। এ লড়াইয়ে যারা উতরে যাবেন তাদের থাকবে ঘরে ফেরার ঝাক্কি। কারণ, মিরপুরে ম্যাচ শুরু হবে রাত সাড়ে ৭টায়। দুই দলের ইনিংস (৪০ ওভার) শেষ হতে হতে ঘড়ির কাঁটা ১১টা ছুঁয়ে ফেলার কথা। ফলে ঘরে ফেরার জন্য বাড়তি সতর্কব্যবস্থা নিয়েই মাঠে আসতে হবে দর্শকদের।
তবে ক্রিকেটের জন্য এ যন্ত্রণা সইতেও যে রাজি তারা! স্টেডিয়াম-পাড়ায় ক্রিকেটপাগলদের জিজ্ঞাসা- টিকিট ছাড়বে কবে। এশিয়া কাপ শুরু হতে বাকী আরও এক সপ্তাহ। আর তিন-চারটা দিন যে অপেক্ষা করতেই হবে তাদের।
আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি টুর্নামেন্টের উদ্বোধণী ম্যাচে ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। ২৬ ফেব্রয়ারি বাংলাদেশের দ্বিতীয় ম্যাচ বাছাইপর্ব (আফগানিস্তান, হংকং, ওমান, আরব আমিরাত) থেকে আসা দল। ২৮ ফেব্রয়ারি বাংলাদেশের প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা। ০২ মার্চ পাকিস্তানের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হবে টাইগাররা। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তানের মধ্যকার হাইভোল্টেজ ম্যাচটি গড়াবে ২৭ ফেব্রুয়ারি।
২ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার পুরস্কারের টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ৬০ হাজার ডলার ও রানার্সআপ দল ৩০ হাজার ডলার। ম্যান অব দ্য ফাইনালের পুরস্কার ৭ হাজার ৫০০ ডলার ও টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় পাবেন ১২ হাজার ৫০০ ডলার। এ ছাড়া গ্রুপ পর্বের প্রতিটি ম্যাচের উইনিং মানি ১০ হাজার ডলার, ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার ৫ হাজার ডলার।
এশিয়া কাপের ম্যাচগুলো সরাসরি সম্প্রচার করবে বাংলাদেশ টেলিভিশন। এছাড়া গাজী টিভি ও মাছরাঙ্গা টিভিতেও দেখা যাবে ম্যাচগুলো। এশিয়া কাপের সম্প্রচার স্বত্ব পেয়েছে স্টার স্পোর্টস। স্টার স্পোর্টস ১, ৩, স্টার স্পোর্টস এইচডি ১ ও ৩-এ দেখা যাবে এশিয়া কাপের ম্যাচগুলো।

শেয়ার