জয়পুরহাট থেকে অপহৃত তরুণী যশোরে উদ্ধার ॥ অপহরণকারীদের হামলায় পুলিশ আহত, দুইজন আটক

atok
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ জয়পুরহাট থেকে অপহৃত এক তরুণীকে যশোর থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে অপহৃতদের হামলায় আশিকুর রহমান নামে পুলিশের এক কনস্টেবল আহত হয়েছেন। গত সোমবার রাতে শহরতলীর খোলাডাঙ্গা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ অপহরণকারীসহ হামলার সাথে জড়িত দুইজনকে আটক করেছে।
আটককৃতরা হলেন, শহরতলীর খোলাডাঙ্গা গ্রামের বাবুল সরদারের ছেলে আফজাল হোসেন ইমু ও একই গ্রামের বাবলু সরদারের ছেলে জাফর সরদার।
যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই শেহাবুর রহমান জানান, জয়পুরহাটের তেঘরিয়া গ্রামের মিজানুর রহমানের মেয়ে মরিয়ম আক্তার আশাকে অপহরণের অভিযোগে গত সোমবার রাতে সংশ্লিষ্ট থানায় একটি মামলা হয়। মামলায় আফজাল হোসেন ইমুকে প্রধান আসামি করা হয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কোতোয়ালি থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে আসামি ইমুকে আটক এবং আশাকে উদ্ধার করে। এসময় ইমুকে আটকের খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজন পুলিশের ওপর হামলা চালায়। তারা আসামি ইমুকে ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। বাধা দেওয়ায় তাদের হাতে পুলিশ কনস্টেবল আশিকুর রহমান আহত হন।
এখবর পেয়ে থানা থেকে আরো কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ সময় জাফর সরদার নামে এক হামলাকারীকে আটক করা হয়।
এদিকে, পুলিশের ওপর হামলা এবং আসামি ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টার ঘটনায় রাতেই এসআই শেহাবুর রহমান বাদী হয়ে আটক জাফর সরদারসহ ১০জনকে আসামি দিয়ে থানায় মামলা করেছেন। এ মামলার অপর আসামিরা হলো, খোলাডাঙ্গা গ্রামের সরদারপাড়া কদমতলা মোড় এলাকার বাবুল সদারের ছেলে সেলিম সরদার জয় ওরফে সজল, মৃত ফটিক সরদারের দুই ছেলে রানা সরদার ও ফারুক সরদার, মৃত আব্দুল লতিফ সরদারের দুই ছেলে আশিকুল সরদার ও রফিকুল সরদার, রমজান আলী সরদারের স্ত্রী শাহানারা বেগম, ইমরান সরদারের স্ত্রী সাথী বেগম, আব্দুল হক সরদারের মেয়ে পপি বেগম এবং একই এলাকার রূপা বেগম। এছাড়া ৭/৮জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়েছে।

শেয়ার