শার্শা-বেনাপোলে ৯৩ শতাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই

shohid minar
এমএ রহিম বেনাপোল॥ আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস পালনে ও ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে যশোরের শার্শা উপজেলায় ৯৩শতাংশ শিক্ষা প্রতিষ্টানে কোন শহীদ মিনার নেই। ১৯৯৯সালে ইউনেস্কো কর্তৃক শহীদ দিবসকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা হিসাবে স্বীকৃতির পর থেকেই প্রতি বছর সারা বিশ্বে পালিত হয় দিবসটি। তবে শার্শায় ভাষা দিবসটি পালিত হয় দায়সারা গোছের। মাদ্রাসা কলেজ ও প্রাইমারী স্কুলগুলোতে দিবসটি পালিত হয় কেবল দোয়া অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। গা-গ্রাম সহ তৃণমূল পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার গড়ে না ওঠায় গুরুত্ব হারাচ্ছে দিবসটি। শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছেন ভাষা আন্দোলনে শহীদদের স্মরণে ও বরনে। এনিয়ে নানান ক্ষোভের জন্ম হচ্ছে ভাষাপ্রেমী মানুষের মধ্যে
সুবর্ণখালি সরকারি প্রাইমারী স্কুলের শিক্ষিকা-শামিমা সুলতানা বলেন, ১৯৫২সালে মাতৃভাষা রক্ষায় অসংখ্য শহীদ হয়েছিল তাদের স্বরনে আজও উপজেলায় ৯০শতাংশ শিক্ষা প্রতিষ্টানে কোন শহীদ মিনার গড়ে না উঠায় শিক্ষাথীরা শ্রদ্ধা ও স্বরন করতে পারে না একই কথা বলেন, শার্শার গোগা বাগুড়ী মাদ্রাসার সুপার ইসাহক আলী। তিনি বলেন, ভাষা আন্দোলনের মাস ফেব্রুয়ারি ভাষার জন্যে যারা শহীদ হয়েছেন-তাদের স্বরন করতে পারেনা অনেকে। মাদ্রাসাগুলোতেও গড়ে উঠেনি কোন শহীদ মিনার এ ব্যাপারে সরকারের কাছে জোরালো সহযোগিতা কামনা করেন তারা।

শেয়ার