অসুস্থতার সংবাদ প্রকাশের পর ভালবাসা দিবসে কালীগঞ্জের মেয়ে প্রীতিলতাকে হুইল চেয়ার উপহার

upoha
নিজস্ব প্রতিবেদক, কালীগঞ্জ॥ নানা অসুস্থ্য থাকলেও প্রীতিলতার আর স্কুল বন্ধ হবে না। এখন থেকে
সে হুইল চেয়ারে চড়ে একাই স্কুলে যেতে পারবে। আকাশ সংস্কৃতির কল্যাণে ভালবাসা দিবস সম্পর্কে জানে প্রীতিলতা। আর এমন দিনে কেউ একজন ভালবেসে তাকে একটি হুইল চেয়ার দিয়েছে। এতে খুশি প্রীতিলতা, খুশি তার পরিবার ও খুশি সহপাঠিরাও।
গত ৪ ফেব্রুয়ারি ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার মস্তবাপুর সম্মিলিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী প্রীতিলতাকে নিয়ে বিভিন্ন অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়াতে “একটি হুইল চেয়ার পারে প্রীতি লতার স্বপ্ন পূরণ করতে” শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হয়। সংবাদ প্রকাশের পর অনেকেই তাকে হুইল চেয়ার দিতে চেয়েছেন। ইতোমধ্যে ঢাকা থেকে নাম ও পরিচয় জানাতে অনিচ্ছুক একজন মহান ব্যক্তি প্রীতিলতাকে একটি হুইল চেয়ার পাঠিয়েছেন। রোববার বিকেলে উপজেলার মস্তবাপুর গ্রামে প্রীতিলতার বাড়িতে যেয়ে তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে হুইল চেয়ারটি তুলে দেয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, কালীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক নয়ন খন্দকার, মস্তবাপুর সম্মিলিত মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম, ব্রেকিং নিউজের ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি আরাফাতুজ্জামান, শিক্ষক মিজানুর রহমান, শিক্ষক ফজলুল করিম, স্টুডেন্ট ওয়েল ফেয়ার অর্গানাইজেশনের উপদেষ্টা মহিব হোসেন, শাকিল আরাফাত, প্রীতি লতার নানা শান্তি শরণ সাহা প্রমুখ।
উল্লেখ্য প্রীতিলতার বাবা মারা যাবার পর প্রীতিলতাকে নিয়ে তার মা সুজাতা দরিদ্র বাবার বাড়িতে চলে আসেন। বাবা মায়ের দারিদ্রতার কথা ভেবে সুজাতা ঢাকায় গিয়ে একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরীতে কাজ করছেন। এরপর শারীরিক প্রতিবন্ধকতাকে জয় করতে হবে, ভালো করে পড়ালেখা করতে হবে, এটা বোঝে প্রীতিলতা। তাই বৃদ্ধ নানা শান্তি শরণ সাহার সাইকেলে চড়ে সে নিয়মিত স্কুলে যাওয়া আসা করে আসছিল।

শেয়ার