অপরাধ দমনে পাঁচ মাস আগে পরিকল্পনা গ্রহণ করে প্রশাসন॥ যশোরে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের কাজ চলছে ধীরগতিতে

cc camera
লাবুয়াল হক রিপন॥
অপরাধ দমনে যশোর শহরকে (ক্লোজ সার্কিট) সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের কাজ চলছে ‘ধীরগতিতে’। প্রায় পাঁচ মাস আগে জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির এক সভা থেকে শহরের ৭০টি স্পটে ১৫৩টি সিসি ক্যামেরা লাগানোর সিদ্ধান্ত হয়। তবে এখনো ‘প্রকল্প’টি বাস্তবায়নে কোন কমিটি গঠন করা হয়নি। হয়নি কোন অর্থ বরাদ্দ। তবে যশোর পুলিশের মুখপাত্র সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) মীর শাফিন মাহমুদ অবশ্য দাবি করছেন, কার্যক্রম চলমান আছে।
জানা গেছে, সীমান্ত জেলা শহর যশোরে প্রতিনিয়ত নানা ধরণের ‘অপরাধ’ সংঘটিত হয়। এসব অপরাধীদের আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময়ে নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তারপরও খুব বেশি কমেনি অপরাধ। থেমে থাকেনি মাদক বেচাকেনা ও অবৈধ কারবার। এজন্য জেলা পুলিশ শহরের ক্রাইম জোনগুলোতে সিসি ক্যামেরা স্থাপনের পরিকল্পনা করে। বিস্তারিত আলোচনা শেষে গত বছরের ২১ অক্টোবর জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা থেকে শহরে ১৫৩টি সিসি ক্যামেরা স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। সিসি ক্যামেরা স্থাপনের স্থান নির্ধারণের দায়িত্ব দেওয়া হয় কোতোয়ালি মডেল থানার সদ্য বিদায়ী ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিকদার আককাছ্ আলীকে। তিনি সেসময় আরএনরোড, হাজী মোহাম্মদ মহাসিন রোড, কাপুড়িয়াপট্টিসহ শহরের ৭০টি স্পটে ১৫৩টি সিসি ক্যামেরা লাগানোর জন্য একটি তালিকা তৈরি করেন। এর মধ্যে আরএন রোড এলাকায় ২৬টি, হাজী মহাসিন রোডে ১১টি, কাপুড়িয়াপট্টিতে ১০টি সিসি ক্যামেরা স্থাপনের পরিকল্পনা নেয় প্রশাসন। তবে পরিকল্পনার পর দীর্ঘ সময়ে শুধুমাত্র স্থান নির্ধারণ ছাড়া অবশিষ্ট কোন কাজ এগোয়নি।
এদিকে, নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্মকর্তা দাবি করেছেন, অপরাধ দমনে শহরে সিসি ক্যামেরা স্থাপনে মোটা অংকের অর্থের প্রয়োজন। কোথা থেকে এই অর্থ আসবে সেটাও দেখার বিষয়। এছাড়া উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতির প্রয়োজন রয়েছে। উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অনুমতি না দিলে এ ধরনের একটি বড় কাজ করা স্থানীয় প্রশাসনের সুযোগ আছে কিনা সেটাও ভেবে দেখা হচ্ছে।
এ ব্যাপারে জেলা পুলিশের মুখপাত্র সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) মীর শাফিন মাহমুদ বলেন, শহরকে অপরাধমুক্ত এবং অপরাধীদের সনাক্ত করতে দেড় শতাধিক সিসি ক্যামেরা বসানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। স্থাপনের কার্যক্রম চলছে। দ্রুতই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা হবে।

শেয়ার