পাকিস্তানের অপকর্ম জায়েজ করার চেষ্টা করছে বিএনপি

mah
সমাজের কথা ডেস্ক॥ মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে কটাক্ষ করে বিএনপি-জামায়াত পাকিস্তানের অপকর্মকে জায়েজ করার চেষ্টা করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ।
হানিফ বলেন, মুক্তিযুদ্ধের পর থেকে শহীদদের সংখ্যা নিয়ে কটাক্ষ করে পাকিস্তানের অপকর্মকে পাকিস্তান যেভাবে অস্বীকার করে আসছে, বিএনপিও মুক্তিযুদ্ধের সময় গণহত্যার সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তুলে পাকিস্তানের সেই বক্তব্য সমর্থন করে যাচ্ছে। প্রকৃতপক্ষে বিএনপি-জামায়াত পাকিস্তানের অপকর্মকে জায়েজ করার চেষ্টা করেছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া পরিকল্পিতভাবে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃত করার চক্রান্তে লিপ্ত হয়েছেন বলেও অভিযোগ করেন হানিফ।

মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা হওয়ায় দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় গুণে গুণে ৩০ লক্ষ শহীদের নাম পত্রিকায় প্রকাশ করার যে দাবি জানিয়েছেন তার জবাবে হানিফ বলেন, মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ মানুষ নিহত হয়েছিলেন। এই বিশাল সংখ্যা একজন-দুজনের নাম করে কখনো হিসাব করা যায় না। পৃথিবীর অনেক দেশে যখন এই রকম গণহত্যা চালানো হয়েছিল। জার্মানিতে নাৎসি বাহিনীর দ্বারা ইহুদি হত্যা হয়েছিল, ২০১০ সালে রুয়ান্ডাতে গণহত্যা হয়েছিল, এর আগে আনবিক বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে মার্কিন সাম্রাজ্যবাদ জাপানে গণহত্যা চালিয়েছিল। এরকম আরো অনেক গণহত্যা হয়েছে। সেখানে একজন-দুজন হিসেবে করে সংখ্যা নির্ধারণ করা হয়নি। এটা অনুমানভিত্তিক সংখ্যায় নির্ধারণ করা হয়েছিল। মানুষের মৃত্যুর ধরণ দেখে, মিছিল দেখেই হয়তো সংখ্যাটাকে অনুমানভিত্তিকই করা হয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশনে এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন হানিফ। বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টির জাতীয় সম্মেলন উপলক্ষে এ সভার আয়োজন করা হয়।

হানিফ আরো বলেন, পাকিস্তান নিজেদের ইসলামী রাষ্ট্র হিসেবে দাবি করে। কিন্তু পাকিস্তান ইসলামী রাষ্ট্র নয়, পাকিস্তান একটি জঙ্গি রাষ্ট্র। একাত্তরে জামায়াত রাজাকার-আলবদর বাহিনী গঠন করে গণহত্যা করেছিল। এই গণহত্যার জন্য তারা জাতির কাছে ক্ষমা চায়নি। এর মাধ্যমে প্রমাণিত তারা পরিকল্পিতভাবে এই ঘটনা ঘটিয়েছিল।

শেয়ার