আন্তর্জার্তিক কাস্টম দিবস॥ বেনাপোলে অর্থ প্রতিমন্ত্রীর অংশগ্রহণে বর্ণাঢ্য র‌্যালি

custo
এমএ রহিম, বেনাপোল॥ দেশের সর্ববৃহৎ স্থলবন্দর বেনাপোলে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দিপনার মধ্যদিয়ে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে বেনাপোল শুল্কভবনের সামনে বেলুন ও কবুতর উড়িয়ে র‌্যালীর শুভ উদ্বোধন করেন অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এমপি। সকাল ১০টার দিকে শুল্কভবনের কর্মকর্তা-কর্মচারী, সিঅ্যান্ডএফ কর্মকর্তা ও বন্দর ব্যবহারকারি ব্যবসায়ীদের অংশগ্রহণে একটি বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিতে প্রধান অতিথি হিসাবে মন্ত্রীী এম এ মান্নান অংশ নেন।
দুুপরে কাষ্টমস ক্লাবে যশোর কাষ্টমস কমিশনার জামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন প্রতিমন্ত্রী আব্দুল মান্নান এমপি। পরে স্থানীয় সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে ট্রানজিট চুক্তির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। অচিরেই তার বাস্তবায়ন হবে। এছাড়াও নেপাল ভুটান ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে চার দেশীয় কার পরিবহন ও কার র‌্যালির বাস্তবায়ন হবে শিঘ্রই। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেনন, বেনাপোল শুল্কভবনের কমিশনার এএফএম আব্দুল্লাহ খান, যশোর ২৬ বিজিবি সিও জাহাঙ্গীর হোসেন, এডিসি আসাদুল হক, বেনাপোল পৌর মেয়র আশরাফুল আলম লিটন, সহকারি পুলিশ সুপার সাফীন মাহমুদ, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সজনসহ বন্দর ব্যবহারকারি বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান আরো বলেন, বিশ্বের ১৭৮টি দেশে এক সঙ্গে কাস্টমস দিবস পালিত হচ্ছে। কাস্টমসের উন্নয়ন কাজে সরকার আন্তরিক। দেশের সবগুলো বন্দরে একই নিয়মে আমদানি পণ্য খালাস হচ্ছে। কাস্টমস কর্তৃপক্ষ ব্যবসায়ীদের দ্রুত পণ্য খালাসে সহযোগিতা দিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। এ সময় সঠিকভাবে রাজস্ব আদায়ে কাস্টমস কর্মকর্তাদের পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের এগিয়ে আসার আহবান জানান তিনি। এদিকে কাষ্টম দিবস উপলক্ষে সকাল থেকে ভারত বাংলাদেশ যাতায়াতকারী পাসপোর্ট যাত্রী ও ভারতীয় কাষ্টম কর্মকর্তাদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। বেনাপোল শুল্কভবনকে সাজানো হয় বর্নিল সাজে।

শেয়ার