নড়াইলে নির্মাণাধীন চিত্রা সেতু নির্দিষ্ট সময়ে সম্পন্ন হচ্ছে না॥ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ও এলজিইডি কর্তৃপক্ষর পরস্পর বিরোধী বক্তব্য

chitra satu
নড়াইল প্রতিনিধি॥ নড়াইলে নির্মানাধীন চিত্রা সেতুর কাজ তিন টানা ৩ মাস ধরে বন্ধ রয়েছে। মূল সেতুর কাজের অনুমতি না পাওয়া ও নড়াইল অংশের ভায়াডাক্ট (ওভারপাস)-এর কাজের নকসার পরিবর্তন হওয়ায় এ জটিলতার সৃষ্টি হয়েছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের অভিযোগ এলজিইডি বিভাগের সিদ্ধান্তহীনতা এবং গাফিলতির কারনে গুরুত্বপূর্ণ এ সেতুর কাজটি বন্ধ রয়েছে। এরফলে নির্দিষ্ট সময়ে সেতু নির্মাণ সম্পন্ন করা অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।
জানা গেছে, শহরের কোল ঘেঁষা নড়াইল ফেরীঘাট ও সীমাখালি অংশে এলজিইডি বিভাগের তত্ত্বাবধানে ২০১৫ সালের এপ্রিল থেকে ২৮ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে ৫ স্প্যান বিশিষ্ট ১৪০ মিটার পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণের কাজ শুরু হয়। ব্রীজ নির্মাণের দায়িত্ব পায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এমবিইএল-ইউডিসি জেভি। মূল সেতুর কাজ ঠিক মতই চললেও গত বছরের ১৫ অক্টোবর থেকে এলজিইডি বিভাগ সেতুর কাজ বন্ধ করে দেয়। কারণ হিসাবে জানা গেছে, মূল সেতুর ফাইলান লোড টেস্ট তিন বার করা হয়েছে এবং নিয়ম অনুযায়ী এর ফলাফল ঠিকঠাক থাকলেও এলজিইডি বিভাগ এখনও মূল সেতু নির্মাণ কাজের অনুমতি দেয়নি। এদিকে কণ্ট্রাক্ট নকসা অনুযায়ী নড়াইল অংশের ভায়াডাক্ট(ওভারপাস)-এর কাজ চলতে থাকলেও এ অংশের নকসা পরিবর্তন হয়েছে। নতুন নকসা এখনও পাশ না হওয়ায় ২৯ নভেম্বর থেকে সংশ্লিষ্ট বিভাগ সেøাপের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে সেতুর ৫০ ভাগ কাজ শেষ হবার কখা থাকলেও ৩৩ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। এবছরের অক্টোবর মাসে সেতুর কাজ সম্পন্ন হবার কথা। নড়াইল প্রেসক্লাবে এসে ঠিকাদারী কাজের ম্যানেজিং ডিরেক্টর প্রকৌশলী কালাম হোসাইন সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেছেন, মূল ব্রীজের কাজের অনুমতি এখনও পাওয়া যায়নি। এছাড়া নড়াইল অংশে ভায়াডাক্ট(ওভারপাস) কাজের নকসা পরিবর্তন হওয়ায় এলজিইডি বিভাগ কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। নড়াইল এলজিইডির নির্বাহী প্রকৗশলীর বক্তব্য সঠিক নয় বলে তিনি মন্তব্য করেন। এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মোতালেব বিশ্বাস বলেন, ঠিকাদার নির্দিষ্ট সময়ে কাজ করতে পারবে না বলে এখন তালবাহানা করছে। মূল সেতুর কাজের অনুমতি দেয়া হয়েছে। কাজ করতে কোনো বাঁধা নেই।
এদিকে এলজিইডি ঢাকা হেডকোয়ার্টারের তত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আলিনুর রহমান জানান, নড়াইল অংশের ভায়াডাক্ট(ওভারপাস)-এর নকশার কাজ চলছে। আশা করা হচ্ছে খুব শীঘ্রই নকশার কাজ শেষ হবে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সহকারি প্রকৌশলী তারেক আজিজ বলেন, এবছরের অক্টোবর মাসে কাজ শেষ করার কথা থাকলেও এলজিইডি বিভাগের লিখিত অনুমতি না পাওয়ায় কাজ কার যাচ্ছে না। উল্লেখ্য, ব্রীজটি নির্মিত হলে নড়াইল সদরের সাথে লোহাগড়া ও কালিয়া উপজেলা, মাগুরা, ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলার সরাসরি যোগাযোগ বৃদ্ধি পাবে। নড়াইলের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে এ ব্রীজের জন্য আন্দোলন সংগ্রাম করে আসছিল।

শেয়ার