রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপপ্রচার মামলা তারেকের বিরুদ্ধে অভিযোগের প্রমাণ পেয়েছে ডিবি

Tarek
সমাজের কথা ডেস্ক॥
রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার অভিযোগ সত্য বলে প্রমাণ পেয়েছে গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ।

মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) ঢাকার সিএমএম আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে এমনটাই জানিয়েছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি’র এএসপি জুয়েল রানা। সরকারের অনুমোদন নিয়ে আগামী ২১ মে তদন্ত প্রতিবেদনটি ফের দাখিলের আদেশ দিয়েছেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তসরুজ্জামানের আদালত।

গত বছরের ১৯ অক্টোবর রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ঢাকার সিএমএম আদালতে মামলাটি দায়ের করেন বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুল মালেক ওরফে মশিউর মালেক।

দ-বিধির ১২৩ (ক) ধারায় দায়ের করা মামলাটি তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দিতে আদেশ দেন মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আসাদুজ্জামান নূরের আদালত।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, গত ২৯ সেপ্টেম্বর লন্ডনের ইয়র্ক হলের এক সভায় জিয়াউর রহমানকে বাংলাদেশের ‘প্রথম রাষ্ট্রপতি’ হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন তারেক রহমান, যা মিথ্যা ও উদ্দেশ্যপ্রণোদিত।

এছাড়া বঙ্গবন্ধুর নামেও কটূক্তি করেন তারেক রহমান। বঙ্গবন্ধুকে ‘পাকবন্ধু’ বলা রাষ্ট্রের স্বাধীনতা এবং স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসকে বিকৃত করার শামিল বলেও মামলায় অভিযোগ করা হয়।

এর আগে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে মামলা করতে গত বছরের ১৪ অক্টোবর সরকারকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান মশিউর মালেক। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে স্বরাষ্ট্র সচিব ও পুলিশের আইজি বরাবর রেজিস্ট্রি ডাকযোগে এ লিগ্যাল নোটিশ পাঠান তিনি।

লিগ্যাল নোটিশ প্রাপ্তির তিন দিনের মধ্যে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে ‘রাষ্ট্রদ্রোহ’ মামলা দায়ের করে তাকে ইন্টারপোলের মাধ্যমে গ্রেফতার করে বিচারের সম্মুখীন করার উদ্যোগ নিতে বলা হয়। অন্যথায় এ বিষয়ে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে লিগ্যাল নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

তিন দিন পার হওয়ার পরে সরকার ব্যবস্থা না নেওয়ায় নিজেই বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন বলেও জানান মশিউর মালেক।

শেয়ার