মোদির সফরে তিস্তা চুক্তির আশ্বাস

molla

সমাজের কথা ডেস্ক॥

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরেই তিস্তা ও সীমান্ত চুক্তিসহ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি সম্পাদন হবে বলে আশ্বাস দিয়েছেন দেশটির লোকসভার স্পিকার সুমিত্রা মহাজন।
সোমবার (৩০ মার্চ) ভিয়েতনামে এক সভা শেষে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সঙ্গে সাক্ষাতকালে সুমিত্রা মহাজন এ আশ্বাস দেন।
মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) জাতীয় সংসদের গণসংযোগ বিভাগ থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এ খবর নিশ্চিত করা হয়।
ডেপুটি স্পিকার ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের (আইপিইউ) ১৩২তম সম্মেলনে বাংলাদেশ সংসদীয় প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন।
আইপিইউ সম্মেলনে অংশ নেওয়া ভারতের লোকসভার স্পিকারের সঙ্গে বাংলাদেশের জাতীয় সংসদ ডেপুটি স্পিকার সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।
সাক্ষাতকালে মো. ফজলে রাব্বী মিয়া বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনে ভারতের সহোযোগিতা, কমনওয়েলথ পার্লামেন্টারি অ্যাসোসিয়েন (সিপিএ) নির্বাচনে বাংলাদেশকে সমর্থনসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে সহযোগিতার জন্য ভারতকে ধন্যবাদ জানান।
এ সময় ভারতের স্পিকার বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকারকে আশ্বাস দিয়ে বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকালে তিস্তা চুক্তি সম্পাদন, সীমান্ত চুক্তিসহ আরো বেশ কয়েকটি বিষয়ে চুক্তি সই হবে।
এর আগে আইপিইউ সম্মেলনে ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া টেকসই উন্নয়নের জন্য জাতীয় বাজেটে পর্যাপ্ত ক্ষেত্র তৈরির বিষয়টি নিশ্চিত করতে সংসদ সদস্যদের প্রতি আহ্বান জানান।

পার্লামেন্টারি ইউনিয়ন অব ওআইসি কান্ট্রির সদস্যদের সঙ্গে (পিইউআইসি) সঙ্গে বৈঠককালে ডেপুটি স্পিকার বলেন, ইসলামের নামে সব ধরনের সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ বন্ধ করতে হবে। ইসলাম সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদকে কখনো সমর্থন করে না। সব রকম সন্ত্রাস বন্ধে সংসদ সদস্যদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। ইসলামের নামে এসব সন্ত্রাস বন্ধে সংসদ সদস্যসহ সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে।
তিনি বলেন, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও সিরিয়াসহ বিভিন্ন দেশে ইসলামের নামে উগ্রপন্থী সন্ত্রাসীরা নারী ও শিশুদের উপর যে নারকীয় হামলা চালাচ্ছে, সেটা নিন্দনীয় অপরাধ। এসব সন্ত্রাস বন্ধে সব ইসলামী
রাষ্ট্রের সংসদ সদস্যদের এগিয়ে আসতে হবে। এ ধরনের সন্ত্রাসের বিপক্ষে বিশ্ব জনমত গড়ে তুলতে হবে।
ডেপুটি স্পিকার ভুটান ও মালদ্বীপের স্পিকারের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন এবং পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।
ইন্টার পার্লামেন্টারি ইউনিয়নের (আইপিইউ) ১৩২তম সম্মেলনে এশিয়া প্যাসিফিক গ্রুপ বৈঠকে আইপিইউ’র বিভিন্ন কমিটির শূন্যপদে প্রার্থী নির্বাচনের বিষয়ে আলোচনা করা হয়।
বৈঠকে আইপিইউ’র কো-অর্ডিনেটিং কমিটি অব উইমেন পার্লামেন্টারিয়ান্সের শূন্য পদে সংসদ সদস্য বেগম ওয়াসেকা আয়েশা খান ও স্ট্যান্ডিং কমিটি অন পিচ অ্যান্ড সিকিউরিটির জন্য আবুল কালাম আজাদকে সদস্য নির্বাচিত করা হয়।
বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলে অন্যদের মধ্যে ছিলেন, সংসদ সদস্য মো. নবী নেওয়াজ, এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী, নুরুল ইসলাম মিলন, আবুল কালাম আজাদ, ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন, রাজী মো. ফখরুল প্রমুখ।

শেয়ার