কামালকে মঞ্চে উঠতে না দেওয়া দুর্ভাগ্যজনক

Kamal
সমাজের কথা ডেস্ক॥

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংস্থার সভাপতি হিসেবে বিশ্বকাপের ফাইনালে বিজয়ী দলের হাতে গঠনতন্ত্র অনুযায়ী ট্রফি তুলে দেওয়ার কথা ছিলো আ হ ম মুস্তফা কামালের। কিন্তু নিয়ম ভঙ্গ করে মাইকেল ক্লার্কের হাতে ট্রফি তুলে দিয়েছেন আইসিসি’র চেয়ারম্যান এন শ্রীনিবাসন। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও।

মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) রাজধানীর শেরে বাংলানগর পরিকল্পনা কমিশনের এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক সভার শুরুতে এ ব্যাপারে কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বকাপ ট্রফি তুলে দেওয়ার মঞ্চে আইসিসি সভাপতি আ হ ম মুস্তফা কামালকে উঠতে না দেওয়া দৃষ্টিকটু হয়েছে। আমরা আগেও দেখেছি আইসিসি ট্রফি চ্যাম্পিয়ন দলকে আইসিসি সভাপতিই তুলে দেন। কিন্তু এবার ট্রফি কামাল না দিয়ে অন্য কেউ দিয়েছে। এটা সত্যিই দুর্ভাগ্যজনক। কামাল কী এত বলেছে যে তাকে মঞ্চে উঠতে দেওয়া হলো না?

একনেক সূত্র জানায় বিষয়টির সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ট্রফি কামাল না দিয়ে যদি অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীও দিতেন তাহলে কোনো প্রশ্ন থাকতো না।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে পাকিস্তানি আম্পায়ার আলিম দার ও ইংলিশ আম্পায়ার ইয়ান গৌল্ডের বাজে আম্পায়ারিংয়েরও কড়া সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সময় তিনি বলেন, আম্পায়ারিংয়ের সিদ্ধান্ত বাজে ছিল, তা নিয়ে যে কেউ মন্তব্য করতেই পারেন। মুস্তফা কামালের এটা নিয়ে মন্তব্য করার অধিকার রয়েছে। এতে দোষের কিছু দেখি না। এ কারণে কামালকে বাদ দিয়ে অন্য কাউকে দিয়ে ট্রফি দেওয়ানো গ্রহণযোগ্য নয় বলেও মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা।

ভারতের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে বাজে আম্পায়ারিংয়ের শিকার হয়ে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নেয় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ওই ম্যাচের পর আইসিসি প্রেসিডেন্ট হিসেবে নিজেকে লজ্জিত বলে উল্লেখ করেন আ হ ম মুস্তফা কামাল। আইসিসিকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল নয়, ইন্ডিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তার এ মন্তব্যের পর ব্যাপক বিতর্ক ওঠে ক্রিকেট বিশ্বে। আর এরই জের ধরে বিশ্বকাপ ফাইনালে বিজয়ীদের হাতে সংস্থাটির সাংবিধানিক নিয়ম ভঙ্গ করে ট্রফি তুলে দেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসন।

শেয়ার