সেই ‘নো’ বলের প্রমাণ মুছে দিল আইসিসি!

prom
সমাজের কথা ডেস্ক॥
বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে আম্পায়রদের বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের বিপক্ষে যায়। যেই সিদ্ধান্তগুলো ম্যাচের ফলাফলে প্রভাব ফেলে পুরোদমে। বিশেষ করে ভারতের ইনিংসে ৪০তম ওভারের চতুর্থ বলটি নিয়ে বেশি তোলপাড় চলছে। বাংলাদেশি পেসার রুবেল হোসেনের করা বলটি অহেতুক ‘নো’ ডেকে বসেন দুই ফিল্ড আম্পায়ার আলিম দার ও ইয়ান গোল্ড। যা নিয়ে এখনও ক্রিকেট বিশ্বে সমালোচনার ঝড় বইছে।
এরই মধ্যে নতুন এক বিতর্কের জন্ম দিয়েছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসি। রুবেলের করা ৪০তম ওভারের চতুর্থ বলটি ওয়েবসাইট থেকে ‘মুছে’ দিয়েছে তারা!
আইসিসি তাদের ওয়েবসাইটের ম্যাচ সেন্টার (সধঃপয পবহঃবৎ) ট্যাবে প্রতিটি বলের ‘হক আই প্রোজেকশন’ দেয়। সেই অনুযায়ী বাংলাদেশ-ভারত কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচের প্রতিটি বলের প্রোজেকশনও দেয়া হয়েছে। কিন্তু রোহিত শর্মাকে করা রুবেল হোসেনের আলোচিত সেই বলটি সেখানে নেই। বলটি আম্পায়ার নো ডাকায় ৭টি বল করতে হয় রুবেলকে। আইসিসির ম্যাচ সেন্টার ট্যাবে দেখা যায় ১, ২, ৩, ৫, ৬ নম্বর বলের প্রজেকশন আছে, কিন্তু চতুর্থ বলটির প্রজেকশন নেই। তৃতীয় বলের পর সরাসরি পঞ্চম বল দেখানো হচ্ছে। হয় আইসিসি প্রথম থেকেই ওই বলের প্রজেকশন দেয়নি, অথবা দিলেও বিতর্ক ওঠার পর তা সরিয়ে ফেলা হয়েছে।

আইসিসির এমন কোনো বিধি নেই যে, ‘নো’ বলের প্রজেকশন দেখানো হবে না। কেননা, একই ম্যাচের ৪২তম ওভারের পঞ্চম বলটি ‘নো’ করেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। হক আই প্রোজেকশনে সেই বলটিও দেখানো হয়েছে। আর আইসিসি ওই বলটি নো দেয়ার পক্ষে পরে সাফাইও গেয়েছে।

তারপরও রুবেলের বলটি কেনো সেই তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে সেটি নিয়ে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। আইসিসি এখন ব্যাপারটিকে ধামাচাপা দেয়ার যতো চেষ্টাই করুক না কেন এর দায় তারা এড়াতে পারে না।

শেয়ার