ছাত্রদল নেতার স্বীকারোক্তি ‘গাড়ি পোড়ালে নেতারা খুশি, বকশিস মেলে

Bishu
সমাজের কথা ডেস্ক॥

‘গাড়ি পোড়ালে নেতারা খুশি হন। বকশিস পাওয়া যায়,’ আটককৃত এক ছাত্রদল নেতা আদালতে স্বীকারোক্তিতে এমন উক্তি করেছেন বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশের একটি দায়িত্বশীল সূত্র।

রামপুরা থানার সাবেক ছাত্রদল নেতা রুবেল হক বিশু গ্রেফতারের পর আদালতের স্বীকারোক্তিতে একেকটি পেট্রোল বোমা ছুঁড়তে তিনজন কিভাবে কাজ করেছেন তার বর্ণনা দিয়েছেন, বলেও জানায় সূত্রটি।

‘আমি গাড়ি থেকে যাত্রী নামাই। রুবেল ম্যাচ দিয়ে পেট্রোল বোমা জ্বালায়, আর জ্বালানোর সঙ্গে সঙ্গে রাজিব ছুঁড়ে মারে। এভাবেই রামপুরা মালিবাগ সড়কে আমরা প্রায় ৮/১০ টি গাড়িতে আগুন দিয়েছি’ আদালতকে বিশু এ কথা বলেছেন বলে দাবি গোয়েন্দা পুলিশের দায়িত্বশীল সূত্রটির।

বিএনপি জামায়াত জোটের হরতাল অবরোধের সময় দেশজুড়ে বাসে-ট্রাকে-গাড়িতে যে হারে পেট্রোল বোমা পড়তে থাকে তারই পরিপ্রেক্ষিতে পরিচালিত অভিযানে আটক হন এই বিশু।

পুলিশ জানায়, রাজধানীর রামপুরা মালিবাগ সড়ক ছিল নাশকতাকারীদের অন্যতম একটি পয়েন্ট। এক পর্যায়ে গোয়েন্দা পুলিশ নাশকতাকারীদের চিহ্নিত করতে শুরু করে। তাতেই উঠে আসে রামপুরা থানার ২৩ নং ওয়ার্ডের সাবেক সভাপতি রুবেল হক বিশুর নাম। তার নেতৃত্বে এসব ঘটনা ঘটে বলেও প্রমাণ চলে আসে হাতে। তারই ভিত্তিতে গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে বিশুকে রামপুরা এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

আর ওই রাতেই গোয়েন্দা পুলিশ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। এতে বিশু ঘটনার দায় স্বীকার করে আদালতে কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। তাতেই তিনি বলেন, ‘গাড়ি পোড়ালে নেতারা খুশি হন। বকশিস পাওয়া যায়।’

শেয়ার