মংলায় ছাদ ধসে আহত ২০ শ্রমিক খুমেকে ভর্তি

Khulna
সমাজের কথা ডেস্ক॥

বাগেরহাটের মংলায় সেনা কল্যাণ সংস্থার এলিফ্যান্ট ব্র্যান্ড সিমেন্ট ফ্যাক্টরির নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ ধসের ঘটনায় ৬ জনের মৃতদেহ ও ২৯ শ্রমিককে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মার্চ) বিকেল ৫টা পর্যন্ত আহতদের মধ্যে ২০ জনকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (খুমেক) ভর্তি করা হয়েছে।

খুমেকের জরুরি বিভাগ সূত্রে পাওয়া তথ্য মতে এরা হলেন, সাতক্ষীরা শ্যামনগরের মোমিনুর ও লিয়াকত, খুলনা হরিণটানার আব্দুল গাজি, বাগেরহাটের রামপালের গৌরম্ভার শিহাব, এমদাদ, মোজাফফার, গৌরম্ভা ভান্ডারকোটের মাসুদ, খুলনা বাগমারার আনিস, আলামিন, সাহেব আলী গাইন, দিনাজপুরের মশিউর ও মিজানুর, রামপালের তরুণ, সামাউল শেখ, বটিয়াঘাটার নাজিম, দাকোপের রবিউল, মংলার মাহফুজুর রহমান।

এছাড়া ঠিকানা পাওয়া যায়নি দেবাশীষ, মাসুদ ও হৃদয়ের। আহত এসব শ্রমিক মুখমন্ডল, মাথা, চোখ ও শরীরের বিভিন্ন অংশে গুরুতর আঘাত লেগেছে।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর আলম বাংলানিউজকে জানান, উদ্ধার কাজে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, কোস্টগার্ড ও ফায়ার সার্ভিস যোগ দিয়েছে।

তিনি আরও জানান, যেহেতু রাত হয়ে আসছে সে জন্য ঘটনাস্থলে প্রচুর আলোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে, যেন উদ্ধারকাজে কোনো সমস্যা না হয়।

এছাড়া হতাহতদের হাসপাতালে নেওয়ার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ অন্যান্য হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে কোস্টগার্ডের পশ্চিম জোনের জোনাল কমান্ডার মেহেদি মাসুদ জানান, ধসে যাওয়া ভবনটি পাঁচ তলার সমান উঁচু ছিল। দুপুরে ছাদ ঢালাইয়ের কাজ চলছিল। এ সময় হঠাৎ ভবনটি ধসে পড়ে।

এদিকে, ধসে পড়া ভবনের নিচে আরও শতাধিক শ্রমিক রয়েছে বলে দাবি করেছেন আহত শ্রমিক ও স্থানীয়রা। এতে বহু প্রাণহানির আশঙ্কাও করছেন তারা। ভবনের মধ্যে মিডিয়া কর্মীদের ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। এর আগে দুপুর পৌনে ১টার দিকে নির্মাণাধীন ভবনটি ধসে পড়ে।

শেয়ার