দেশের জন্য ব্যথা ভুলে থাকেন মাশরাফি

Mash
সমাজের কথা ডেস্ক॥ পা, হাঁটু, গোড়ালি-একের পর এক চোট আর অস্ত্রোপচারে জেরবার অবস্থা মাশরাফি বিন মুর্তজার। তবু তিনি ব্যথা ভুলে উঠে দাঁড়ান, পেস গোলায় প্রতিপক্ষের ব্যাটিং লাইনআপে ধস নামিয়ে দেন। মাশরাফি পারেন কিভাবে?
ইংল্যান্ডকে হারিয়ে বাংলাদেশকে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপের কোয়ার্টার-ফাইনালে তোলার পর মাশরাফি উত্তরটা দিয়েছেন। জানিয়েছেন, কোন প্রাণশক্তির জোরে বারবার হোঁচট খেয়েও ঘুরে দাঁড়ান তিনি।
“আপনি যদি দেশের জন্য পারফরম করতে চান, তাহলে আপনাকে ব্যথা বয়ে বেড়াতে হবে।”
নিত্যসঙ্গী হয়ে যাওয়া চোটের কারণেই মাশরাফি এবার একটু বেশি সাবধানী। অস্ট্রেলিয়া-নিউ জিল্যান্ড বিশ্বকাপে তিনি হাঁটুতে প্রতিরক্ষা আবরণ পরেন। রান আপে, বোলিংয়েও কিছুটা পরিবর্তন এনেছেন। কিন্তু সেই বিধ্বংসী ভাবটা আছে আগের মতোই। এ পর্যন্ত ছয় উইকেট নিয়ে দলের শেষ আটে ওঠায় দারুণ ভুমিকা রেখেছেন তিনি।

গত সোমবার অ্যাডিলেইড ওভালে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে বিশ্বকাপের কোয়ার্টার-ফাইনালে ওঠার ম্যাচে অ্যালেক্স হেলস ও জো রুটকে সাজঘরে ফেরান ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’ খ্যাত এই পেসার।
১৪ বছরের ক্যারিয়ারে ১১ বার চোটের কারণে দলের বাইরে যেতে হয়েছে মাশরাফিকে। চোটই তার কাছ থেকে ছিনিয়ে নিয়েছিল দেশের মাটিতে বিশ্বকাপের গত আসর।
চার বছর আগে বাড়ির উঠানে বিশ্বকাপ খেলতে না পারার কষ্টে অঝরে কেঁদেছিলেন মাশরাফি; কিন্তু হালটা ছাড়েননি। তাই চার বছরের ব্যবধানে ইতিহাস গড়ার হাসি এখন ঝিলিক দিচ্ছে তার মুখে। প্রথম অধিনায়ক হিসেবে বাংলাদেশকে বিশ্বকাপে কোয়ার্টার-ফাইনালে তোলার কৃতিত্ব যে তার-ই।
ক্যারিয়ারে ব্যথানাশক ইনজেকশন নিয়ে একাধিকবার খেলেছেন মাশরাফি। তবে ব্যথা ভুলে থাকার আরেকটি ‘ওষুধ’ যে সাফল্য, তা ৩১ বছর বয়সী এই ডানহাতি পেসার ইংল্যান্ড ম্যাচের পর জানাতে ভোলেননি।

“যখন আপনি ভালো করেন এবং জয় পান, তখন ব্যথা পালিয়ে যায়..ইংল্যান্ড ম্যাচের মতো।”

চোটের চোখ রাঙানি, ব্যথা উপেক্ষা করে জ্বলে ওঠা এই মাশরাফিকে অনুপ্রেরণা মানেন তার সতীর্থরা। ‘নড়াইল এক্সপ্রেস’এর কাছ থেকে দুঃসময়কে পেছনে ফেলে ঘুরে দাঁড়ানোর শক্তিটুকু নেওয়ার কথা জানিয়েছেন অ্যাডিলেইডের ম্যাচ সেরা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।
“তার (মাশরাফি) মতো চোট নিয়ে কয়জন ক্রিকেটার লড়াইয়ে ফিরেছে..কেবল একবার নয়, বারবার? নিজের প্রতি তার যে আত্মবিশ্বাস, সেটা আমাদেরকেও অনুপ্রাণিত করে।”
মাহমুদুল্লাহ বোধহয় একটু বাড়িয়ে বলেননি। কেননা, অস্ত্রোপচারের টেবিলেই মাশরাফিকে যেতে হয়েছে সাত-সাতবার! দেশের জন্য ব্যথা ভুলে থাকার অফুরান প্রাণশক্তি আছে বলেই তো ফিরতে পেরেছেন মাশরাফি।

শেয়ার