ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ইদুরের উপদ্রব!

uk parliament

সমাজের কথা ডেস্ক॥ বাইরে যতোই জাঁকজমপূর্ণ মনে হোক না কেন, ব্রিটেনের পার্লামেন্ট ভবনের ভেতরে সাংসদরা অস্থির ইদুর আর ধোঁয়ার অত্যাচারে। ইদুরের কবল থেকে বাঁচতে কেউ কেউ তো বিড়াল পোষার পরামর্শও দিয়ে বসেছেন।

প্রায় দেড়শ’ বছর বয়সী এ ভবনের ছাদে ফাঁটল দেখা দেওয়ায় এমন উপদ্রবের সৃষ্টি হয়েছে।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, ফাঁটলের কারণে বৃষ্টি হলে রীতিমতো ছাতা ধরার অবস্থা হয়ে যায় ভেতরে থাকা মানুষগুলোর।

ইদুরের উপদ্রবের কারণ হিসেবে ছাদের ফাঁটল ছাড়াও ভবনে থাকা অ্যাসবেস্টস অন্যতম কারণ বলে মনে করা হচ্ছে।

হাউজ অব কমন্সের এক সদস্য আন্নি ম্যাকিনটশ ইদুরের উপদ্রব বন্ধে বিড়াল পোষার দাবি জানিয়েছিলেন। তিনি এ বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমকে বলেন, কিছু কারণে আমার বিড়াল পোষার ধারণাটা গ্রহণ করা হয়নি।

আন্নি ম্যাকিনটশ ছাড়াও আরো বেশ কয়েকজন সাংসদ ইদুরের উপদ্রবের বিষয়ে অভিযোগ করেছেন।

হাউজ অব কমন্সের স্পিকার জন বেরকাউ গত মঙ্গলবার (০৩ মার্চ) যাবতীয় সমস্যার কথা তুলে ধরে এক বক্তৃতায় বলেন, ভবনটি যদি এখনই ঠিকঠাকভাবে মেরামত করা না হয়, তাহলে আগামী ২০ বছরের মধ্যে এটি পরিত্যক্ত হয়ে যাবে।

তিনি তার বক্তৃতায় জানান, মেরামত বাবদ ৩ বিলিয়ন পাউন্ড (৪.২ বিলিয়ন ইউরো) খরচ হতে পারে।

একাদশ শতকে নির্মিত ওয়েস্ট মিনিস্টার ব্রিটিশ রাজার প্রাথমিক বাসস্থান ছিল। ১৫১২ সালে এ ভবনে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটার পর তা ইংল্যান্ডের সংসদ ভবন হিসেবে ব্যবহার হয়ে আসছিল। ১৮৩৪ সালে আরো বড় একটা অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটলে ভবনটি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তারপর আবার মেরামত করতে হয়।

শেয়ার