নির্ভয়া ধর্ষকের ইন্টারভিউ প্রচার নিষিদ্ধ ভারতীয় আদালতে

NIRVOYA
সমাজের কথা ডেস্ক॥

গণধর্ষনের দায়ে মৃত্যুদ-প্রাপ্ত আসামির সাক্ষাৎকার প্রচার এবং প্রকাশ নিষিদ্ধ করেছে দিলি¬র এক আদালত।

২০১২ সালে ভারতের রাজধানী দিলি¬তে একটি গণপরিবহন বাসে গণধর্ষণের শিকার হয়ে নিহত হন এক নারী। ‘নির্ভয়া রেপ কেস’ হিসেবে পরিচিত এ ঘটনায় তখন বিশ্ব জুড়ে ওঠে নিন্দা আর সমালোচনার ঝড়। এই ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে অভিযোগ দায়ের করা হয় পাঁচজনের বিরুদ্ধে। বিচারে তাদের চারজনের মৃত্যুদ- হয়। এই সাজাপ্রাপ্তদেরই একজন মুকেশ সিং। সে ওই বাসটির চালক।

সম্প্রতি ব্রিটিশ চলচ্চিত্র পরিচালক লেসলি উডউইন দিলি¬র অদূরে তিহার কারাগারে বন্দি মুকেশের সাক্ষাৎকার নেন।

ওই সাক্ষাৎকারে মুকেশ এধরণের ঘৃণ্য কাজে জড়িত থাকার ব্যাপারে কোনো অনুশোচনা না দেখিয়ে উল্টো ধর্ষিতাকেই দোষারোপ করে।

তার মতে ‘একটা ভালো মেয়ে কখনোই রাত ৯টায় বেড়াতে বের হয় না। ধর্ষণের জন্য ছেলেদের চেয়ে মেয়েরাই বেশি দায়ী থাকে। ছেলে এবং মেয়ে সমান না। গৃহস্থালীর কাজগুলো মেয়েদের জন্য। অসামঞ্জস্য পোশাক পরে রাতে ডিস্কো আর বারগুলোয় ঘুরে বেড়ানো তাদের কাজ না।‘

এদিকে এই সাক্ষাৎকারের বিষয়টি প্রকাশের পর নড়েচড়ে বসে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। লেসলি উইউইন কী ভাবে কঠোর নজরদারিতে বন্দি মুকেশের সাক্ষাৎকার গ্রহণ করতে পারলেন সে ব্যাপারে কারাকর্তৃপক্ষের কাছে কৈফিয়ত তলব করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী রাজনাথ সিং। পাশাপাশি সংবাদমাধ্যমে এর প্রচার ও প্রকাশ বন্ধ চেয়ে আদালতে আবেদন করে দিলি¬ পুলিশ। এ প্রসঙ্গে দিলি¬ পুলিশের মুখপাত্র রাজন ভগত বলেন, সাক্ষাৎকারটির প্রচার বন্ধ চাওয়ার অন্যতম কারণ হলো, এতে এ ধরণের অপরাধ প্রবণতা আরো বেড়ে যাবে।

পুলিশের ওই আবেদনের প্রেক্ষিতে এই সাক্ষাৎকার প্রচার ও প্রকাশের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে আদালত। আদালতের আদেশ অনুযায়ী কোনো দেশি বা বিদেশি চ্যানেলে এখন এই সাক্ষাৎকার প্রচার এবং অন্য কোনোভাবে প্রকাশ করা যাবে না বলে জানান রাজন।

এদিকে এই সাক্ষাৎকারটি আগামী ৮ মার্চ বিবিসি ফোর এর স্টোরিভিল এবং ভারতের স্থানীয় এনডিটিভি চ্যানেলে প্রচারের কথা। তবে আদালতের নিষেধাজ্ঞায় বিষয়টি ঝুলে গেল বলে মনে করছেন অনেকেই। অবশ্য সাক্ষাৎকার গ্রহণকারী লেসলি উডউইনের দাবি এই নিষেধাজ্ঞা স্বাধীন মত প্রকাশের অধিকারের লঙ্ঘন।

শেয়ার