তিস্তা নিয়ে উদ্বেগের কথা জানিয়েছে বাংলাদেশ

brefing
সমাজের কথা ডেস্ক॥

তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি নিয়ে উদ্বেগের কথা ভারতের নতুন পররাষ্ট্রসচিব সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্করকে জানিয়েছে বাংলাদেশ।

সোমবার বিকেল পৌনে পাঁচটা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক এ সব কথা জানিয়েছেন।

ভারতের নতুন পররাষ্ট্র সচিব সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্করের সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী ও পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হকের পৃথক বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

কোন বিষয়ে উদ্বেগ জানানো হয়েছে জানতে চাইলে শহীদুল হক সরাসরি উত্তর দেননি। তবে তিনি বলেন, এটিকে তারা ইতিবাচকভাবে নিয়েছে। এ সমস্যার সমাধান করতে চায় ভারত।

তিস্তা নিয়ে এই মুহূর্তে তিন ধরনের উদ্বেগ আছে বাংলাদেশের। সেগুলো হচ্ছে- তিস্তার পানি সর্বনিম্ন স্তরে নেমে যাওয়া, দীর্ঘদিন (২০১১ সাল থেকে) চুক্তি ঝুলে থাকা ও চুক্তির খসড়া চূড়ান্ত হওয়ার পর ‘কারিগরি’ প্রশ্ন তোলা আরো এক ধরনের উদ্বেগ তৈরি করেছে।

ভারতের মনোভাব প্রসঙ্গে সচিব শহীদুল হক বলেন, ভারতের এই সরকারের বিশেষ একটি দিক লক্ষ করেছি আমরা। তারা প্রতিবেশী দেশগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করতে চায়। অমীমাংসিত সমস্যাগুলো সমাধান করতে চায়।

তিনি বলেন, ভারতের বর্তমান সরকার আঞ্চলিক সম্পর্ক উন্নয়নে বিশেষ নজর (ফোকাস) দিয়েছে।

ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে বৈঠকে দ্বিপাক্ষিক, উপআঞ্চলিক, আঞ্চলিকসহ সব বিষয়ে মতের আদান-প্রদান হয়েছে বলে জানান বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব শহীদুল হক।

এদিকে, বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীর সঙ্গে তার বৈঠক গঠনমূলক এবং ফলপ্রসূ হয়েছে বলে জানিয়েছেন, ভারতের পররাষ্ট্র সচিব সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর।

ভারতের নতুন পররাষ্ট্র সচিব সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর একদিনের শুভেচ্ছা সফরে সোমবার সকালে ঢাকা আসেন। এ সময় ঢাকার হযরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক জয়শঙ্করকে স্বাগত জানান। ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

সন্ধ্যায় জাতীয় সংসদ ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করবেন ভারতের নতুন পররাষ্ট্র সচিব সুব্রামানিয়াম জয়শঙ্কর।

এরপর মঙ্গলবার সকালে তিনি পাকিস্তানের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

শেয়ার