আফগানিস্তানে তুষারধসে মৃত ১২০ ছাড়িয়েছে

afgan

সমাজের কথা ডেস্ক॥ আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের উত্তরাঞ্চলে ধারাবাহিক তুষারধসে মৃতের সংখ্যা ১২০ ছাড়িয়েছে।
বিবিসি বলছে, আকস্মিক তুষারপাতের ঘটনায় অধিবাসীরা অনেকেই বিস্মিত হয়েছেন।

স্থানীয় গভর্নর আবদুল রহমান কাবিরি বলেছেন, মসজিদ, স্কুল এবং কমপক্ষে ১০০ ঘর-বাড়ি তুষারের নিচে চাপা পড়েছে। এরফলে অনেকেই আটকা পড়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।
উত্তর-পূর্বাঞ্চলের বড় একটি এলাকা ২৪ ঘণ্টাই তুষারে ঢাকা পড়ে আছে। এর মধ্যে সৃষ্ট ঝড় ওই এলাকায় মারাত্মক বিপর্যয় ডেকে এনেছে বলে জানানো হয়েছে।
তুষারধসের পর উপদ্রুত এলাকায় গেছে উদ্ধারকারী দল।
উত্তর আফগানিস্তানে তুষারধস একটি সাধারণ ঘটনা। ২০১০ এবং ২০১২ সালের তুষারধসে ডজন ডজন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন।
গভর্নর কাবিরি বলেন, তিন দশকের মধ্যে পঞ্জশির প্রদেশে এই মাত্রার তুষারধসের ঘটনা ঘটেনি।
তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের ২৫ মাইলের মতো তুষার পরিষ্কার করতে হবে।’
দুর্যোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পঞ্জশির প্রদেশের বাইরে আরো ৪/৫ টি স্থানে আরো মানুষের মৃত্যুর ফলে প্রাণহানির সংখ্যা ১০০ ছাড়িয়ে গেছে। মৃতের সংখ্যা আরো বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে।
কয়েক বছরের মধ্যে এটিই দেশটিতে তুষারধসে সর্বোচ্চ প্রাণহানির ঘটনা বলে মনে করা হচ্ছে।
২০১২ সালে বাদাকশান প্রদেশে তুষারধসে কয়েক ডজন মানুষের মৃত্যু হয়। আর ২০১০ সালে সালাঙ অঞ্চলে ২০ দফা তুষারধসে অন্ততপক্ষে ১৬৫ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

শেয়ার