মনিরামপুরে অস্ত্রের মুখে যুবলীগ কর্মীকে অপহরণের চেষ্টা, ৬ সন্ত্রাসীকে গণপিটুনি

gonopituni
নিজস্ব প্রতিবেদক, মণিরামপুর॥ মণিরামপুরে অস্ত্রেরমূখে এক যুবলীগ কর্মীকে অপহরণের সময় ধারালো অস্ত্রসহ ৬ সন্ত্রাসীকে ধরে গণধোলায় দিয়ে পুলিশে দিয়েছে জনতা। মঙ্গলবার দুপুরে শ্যামকুড় ইউনিয়নের জামলা গ্রামে এঘটনা ঘটে। আটককৃতদের মধ্যে রয়েছে যশোর শহরের মাইকপট্টি এলাকার ইনছান আলী মোল্যার ছেলে আবুল কালাম আজাদ (২৫), উপশহর এলাকার আলম হোসেনের ছেলে আমির সোহেল (২৪), কেসমত নওয়াপাড়ার আনোয়ার হোসেনের ছেলে কামরান হোসেন (২৫) বিরামপুর এলাকার ফুল মিয়ার ছেলে আসাদুল (২৬), বাঘারপাড়া উপজেলার নাছির হায়দারের ছেলে এনামুল হায়দার (২৪) এবং গোবিন্দপুর গ্রামের আব্বাস আলীর ছেলে মনির (২৫)। ঘটনার সময় কবির হোসেন নামে অপর এক অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী পালিয়ে যায় বলে স্থানীয়রা জানায়।
পুলিশ ও এলাকাবাসি জানায়, সন্ত্রাসীরা ঘটনার দিন ৩টি মোটরসাইকেল যোগে জামলা গ্রামের শামছুর গাজীর পুত্র যুবলীগ কর্মী আব্দুস সালামের বাড়িতে প্রবেশ করে তাকে অপহরণের চেষ্টা চালায়। এ সময় সালাম চিৎকার দিলে এলাকাবাসি ছুটে এসে ওই ৬ সন্ত্রাসীকে আটক করে গণপিটুনি দেয়। এক পর্যায়ে তাদের পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়। মণিরামপুর থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক ইকবাল তাদের মণিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। পুলিশ জানায়, আটককৃতদের কাছ থেকে একটি চাইনিজ কুড়াল ও ২টি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে। স্থানীয়রা আরো জানায়, সালামের সাথে আটক যুবকদের রাজনৈতির্ক শত্রুতার জের ধরে এ ঘটনা ঘটতে পারে। তবে যুবলীগ কর্মী আব্দুস সালাম দাবি করেছেন, সন্ত্রাসীরা তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে অপহরণের চেষ্টা চালায়। জানতে চাইলে মণিরামপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোল্লা খবীর আহমেদ জানান, আটককৃতরা অস্ত্রের মুখে সালামকে অপহরণের চেষ্টা চালায়। স্থানীয় জনতা তাদের ধরে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা প্রস্তুতি চলছিল বলে জানা যায়।

শেয়ার