আমিরাতকে হারিয়ে জিম্বাবুয়ের প্রথম জয়

Ervine
সমাজের কথা ডেস্ক॥ দৃঢ়তাভরা ব্যাটিংয়ে কোনো অঘটন ঘটতে দেননি শন উইলিয়ামস। বিশ্বকাপে নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ৪ উইকেটে হারিয়ে প্রথম জয় তুলে নিয়েছে জিম্বাবুয়ে।
বৃহস্পতিবার নেলসনের স্যাক্সটন ওভালে ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেটে ২৮৫ রান করে আরব আমিরাত। জবাবে ৪৮ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় জিম্বাবুয়ে।
সাইমান আনোয়ারের অর্ধশতকে ওয়ানডেতে নিজেদের সর্বোচ্চ রান করে জিম্বাবুয়েকে বড় লক্ষ্য দিয়েছিল আরব আমিরাত। থিতু হওয়ার পর ব্যাটসম্যানদের বিদায়ে এক সময় বিপদেই পড়েছিল জিম্বাবুয়ে। সেখান থেকে দলকে স্বস্তির জয় এনে দেন উইলিয়ামস।
দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ৬৪ রানের চমৎকার ইনিংস খেলা চামু চিবাবা হাঁটুর চোটের কারণে খেলেননি এই দিন। তার জায়গায় সিকান্দার রাজার সঙ্গে জিম্বাবুয়ের ইনিংস উদ্বোধন করেন রেগিস চাকাভা।
রাজা-চাকাভার ১৩ ওভার স্থায়ী ৬৪ রানের উদ্বোধনী জুটি জিম্বাবুয়েকে ভালো সূচনা এনে দেয়। রাজার বিদায়ের পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে অস্বস্তিতে পড়ে প্রথম ম্যাচে ৬২ রানে হারা দলটি।
৪৬ রান করে বিদায় নেন রাজা। হিট উইকেট হয়ে ফেরা চাকাভার ব্যাট থেকে আসে ৩৫ রান।
ব্রেন্ডন টেইলর ৪৭ রানের ভালো একটি ইনিংস খেললেও দুই অঙ্কেই পৌঁছাতে পারেননি হ্যামিল্টন মাসাকাদজা (১) ও সলোমন মায়ার (৯)।
এক সময়ে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ছিল ৫ উইকেটে ১৬৭ রান। সেখান থেকে দলকে দলকে জয়ের পথে নিয়ে যান উইলিয়ামস ও ক্রেইগ আরভিন। ৬২ বলে ৮৩ রানের জুটি গড়েন এই দুই জনে। এতে আরভিনের অবদান ৪২ রান।
অধিনায়ক এল্টন চিগুম্বুরাকে সঙ্গে নিয়ে বাকি কাজটুকু সহজেই সারেন উইলিয়ামস। ম্যাচ সেরা এই বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানের ৬৫ বলে খেলা ৭৬ রানের অপরাজিত ইনিংসটি ৭টি চার ও ১টি ছক্কা সমৃদ্ধ।

আরব আমিরাতের অধিনায়ক মোহাম্মদ তৌকির ৫১ রানে নেন ২ উইকেট।
টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হয়নি আরব আমিরাতের। একাদশ ওভারে ৪০ রানে দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যানকে হারায় তারা।
তৃতীয় উইকেটে খুররম খান ও কৃষ্ণ চন্দ্রনের ৮২ রানের জুটিতে প্রতিরোধ গড়ে আরব আমিরাত। তবে ১২ রানের মধ্যে এই দুই ব্যাটসম্যানের বিদায়ে অস্বস্তিতে পড়ে তারা।
পাল্টা আক্রমণে ৮২ রানের আরেকটি জুটি গড়ে আরব আমিরাত শিবিরে স্বস্তি ফেরান স্বপ্নিল পাতিল ও আনোয়ার।
এই জুটি ভাঙার পর আবার দিক হারায় আইসিসির সহযোগী দেশটি। মাত্র ১৬ রানে তিন উইকেট হারায় তারা। তবে দলকে দলকে তিনশ’ রানের কাছাকাছি নিয়ে যান আহমেদ জাভেদ ও মোহাম্মদ নাভেদ।
অবিচ্ছিন্ন অষ্টম উইকেটে ৫.৫ ওভারে ৫৩ রানের জুটি গড়েন জাভেদ-নাভেদ। তাদের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে ওয়ানডেতে নিজেদের সর্বোচ্চ রানের সংগ্রহ গড়তে পারে আরব আমিরাত।
তাদের আগের সর্বোচ্চ ছিল ৪ উইকেটে ২৮২ রান। গত নভেম্বরে দুবাইয়ে আফগানিস্তানের বিপক্ষে এই রান করেছিল তারা।
৪২ রানে ৩ উইকেট নিয়ে জিম্বাবুয়ের সেরা বোলার পেসার টেন্ডাই চাটারা। এছাড়া দুটি করে উইকেট নেন মায়ার ও উইলিয়ামস।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

সংযুক্ত আরব আমিরাত: ৫০ ওভারে ২৮৫/৭ (আমজাদ ৭, ব্যারেঙ্গার ২২, কৃষ্ণ ৩৪, খুররম ৪৫, স্বপ্নিল ৩২, আনোয়ার ৬৭, মুস্তফা ৪, জাভেদ ২৫*, নাভেদ ২৩*; চাটারা ৩/৪২, মায়ার ২/৩৯, উইলিয়ামস ২/৪৩)

জিম্বাবুয়ে: ৪৮ ওভারে ২৮৬/৬ (রাজা ৪৬, চাকাভা ৩৫, মাসাকাদজা ১, টেইলর ৪৭, উইলিয়ামস ৭৬*, মায়ার ৯, আরভিন ৪২, চিগুম্বুরা ১৪*; তৌকির ২/৫১, জাভেদ ১/৪৯, নাসির ১/৫৩, কৃষ্ণ ১/৫৯, নাভেদ ১/৬০)

ম্যাচ সেরা: শন উইলিয়ামস।

সাইক্লোন ম্যার্সিয়ায় বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচ প-ের শঙ্কা
সমাজের কথা ডেস্ক॥ অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ড উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে সাইক্লোন ম্যার্সিয়া। এই উপকূলের শহর ব্রিসবেনে প্রবল বৃষ্টিপাতের কারণে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচটি প- হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
কুইন্সল্যান্ডের ব্রিসবেনের মাঠ গ্যাবায় অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে বাংলাদেশের ম্যাচটি শনিবার। ব্রিসবেনের কাছের শহর ম্যাকায় ও গ্ল্যাডস্টোনের মাঝামাঝি স্থানে ম্যার্সিয়া আঘাত হানতে পারে অস্ট্রেলিয়ার সময় শুক্রবার ভোরের দিকে।
বৃহস্পতিবার সকালে সাইক্লোনটি ম্যাকায়ের ১৪০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে ছিল। স্থানীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, সাইক্লোনটির কেন্দ্রের কাছে বাতাসের বেগ ঘণ্টায় ১৯৫ কিলোমিটার থেকে বেড়ে ঘণ্টায় ২৭০ কিলোমিটার হচ্ছে।
উপকূলে আঘাত হানার সময় ম্যার্সিয়া ‘ক্যাটাগরি ৫’ সাইক্লোনে পরিণত হতে পারে বলে জানায় স্থানীয় আবহাওয়া অধিদপ্তর।
ম্যার্সিয়া কুইন্সল্যান্ড উপকূলে শুক্রবার আঘাত হানলেও এর প্রভাবে বৃষ্টি আগেই শুরু হয়েছে। আর এই বৃষ্টিতে ভেসে যেতে পারে বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া ম্যাচও।
বৃষ্টির কারণে গত দুই দিন থেকে পুরোদমে অনুশীলন করতে পারছে না অস্ট্রেলিয়া। একাদশ নির্বাচনও আবহাওয়ার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে করতে চায় বলে সেটাও এখনো ঠিক করতে পারেনি টুর্নামেন্টের সবচেয়ে ফেভারিট দলটি।
বৃহস্পতিবার দলের উইকেটরক্ষক ব্র্যাড হ্যাডিন এ নিয়ে কথা বলেন।
“গতকাল (বুধবার) এটা আমাদের প্রস্তুতি পাল্টে দিয়েছে। এটা (সাইক্লোন) আমাদের দল ঘোষণা দেরি করিয়ে দিচ্ছে। পিচ কভারটা ওঠানোর পর কি দেখব, সেটা আমরা নিশ্চিত নই।”
আপাতত ভেজা আবহাওয়ায় চারজন পেস বোলার খেলানোর চিন্তাই মাথায় আছে অস্ট্রেলিয়ার টিম ম্যানেজমেন্টের।

শেয়ার