ধর্মীয় হামলার বিরুদ্ধে মোদীর হুঁশিয়ারি

Modi
সমাজের কথা ডেস্ক॥ ভারতে সব ধর্মের মানুষদের সুরক্ষা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। তার সরকার কখনোই কোনো ধর্মীয় দলকে বিদ্বেষ ছড়াতে দেবে না বলে হুঁশিয়ার করেছেন তিনি।
সম্প্রতি দিল্লির কয়েকটি চার্চে হামলার ঘটনার পর একটি চার্চে বক্তৃতা দেয়ার সময় এ প্রতিশ্রুতি দেন মোদী। সেইসঙ্গে তিনি সব ধর্মের মানুষদের নিজেদের নিয়ন্ত্রণ করার এবং অন্যদের প্রতি সম্মান দেখানোর আহ্বানও জানিয়েছেন।

গত বছর ডিসেম্বর থেকে দিল্লিতে এখন পর্যন্ত পাঁচটি চার্চে হামলার ঘটনা ঘটেছে। খ্রিস্টানদের অভিযোগ, উগ্রপন্থি হিন্দুরা এ হামলা চালিয়েছে। যদিও পুলিশ জানিয়েছে, হামলার বিষয়ে তাদের হাতে খুব সামান্য তথ্যই আছে।

চার্চে হামলার বিষয়ে এই প্রথম কথা বললেন মোদী। দিল্লির খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের আয়োজিত এক সম্মেলনে মঙ্গলবার তিনি বলেন, “যে কোন ধর্মের বিরুদ্ধে নৃশংসতার নিন্দা জানাই আমি। আমরা এ ধরনের নৃশংসতার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করব।”

“আমার সরকার কোন ধর্মীয় দলকে উস্কানি দিতে কখনোই দেবে না। ওই দল সংখ্যাগরিষ্ঠ নাকি সংখ্যালঘু জনগোষ্ঠী থেকে এসেছে তা বিচার করা হবে না।”

“প্রত্যেকেরই নিজ পছন্দ অনুযায়ী ধর্ম অনুসরণ করার পূর্ণ অধিকার রয়েছে। এ অধিকারের ব্যাপারে কোন প্রশ্নের অবকাশ নেই এবং এ ব্যাপারে তাকে কোন ধরনের জোর জবরদস্তি করা যাবে না।”

সমালোচকদের অভিযোগ, মোদীর হিন্দুপন্থি বিজেপি সরকার ভারতে সংখ্যালঘু অন্যান্য ধর্মের জনগণকে উগ্র হিন্দুবাদীদের হাত থেকে রক্ষা করতে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না।

২০০২ সালে মোদী গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী থাকার সময় সেখানে মুসলিম বিরোধী দাঙ্গা নিয়ন্ত্রণে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি বলেও অভিযোগ রয়েছে। ওই দাঙ্গায় এক হাজারের বেশি মানুষ প্রাণ হারায় যাদের অধিকাংশই মুসলিম।

দাঙ্গার ঘটনা নিয়ে মোদীর বিরুদ্ধে মামলাও হয় এবং পরে আদালত তাকে নির্দোষ ঘোষণা করে। দিল্লির দুইশ’র বেশি চার্চের নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শেয়ার