বসন্ত উৎসব ও ভালোবাস দিবস গদখালীতে ১৫ কোটি টাকার ফুল বিক্রির সম্ভাবনা

fool
কামারুজ্জামান কামাল, ঝিকরগাছা॥ দেশের চলমান হরতাল ও অবরোধের মধ্যেও ঝিকরগাছার গদখালীতে ফুল বেচাকেনা জমে উঠেছে। আগামী ১২ ফেব্রুয়ারী বসন্ত উৎসব ও ১৪ ফেব্রুয়ারী ভালোবাস দিবস উপলক্ষে গদখালীর ফুল দুমছে বিক্রি হচ্ছে। ফুল ব্যবসায়ী ও কল্যাণ সমিতির ধারণা এবার ১২ থেকে ১৫ কোটি টাকার ফুল বিক্রি হবে। অবশ্য যদি হরতালের মতো কঠোর কোন কর্মসুচি না দেয়া হয়।
বাংলাদেশ ফ্লায়ার সোসাইটির সভাপতি ও গদখালী ফুল ব্যবসায়ী ও কল্যাণ সমিতির সভাপতি আব্দুর রহিম জানান, বর্তমানে দেশের চলমান পরিস্থিতিতে আগামী ১২ ফেব্রুয়ারী বসন্ত উৎসব ও ১৪ ফেব্রুয়ারী ভালোবাস দিবস উপলক্ষে গদখালী ফুল বাজার থেকে প্রায় ১২ থেকে ১৫ কোটি টাকার ফুল বেচাকেনা হবে আর যদি হরতাল অবরোধের পরিস্থিতি আরো খারাপ হয় তা হলে ফুলচাষীরা প্রায় ১০ কোটি টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। গদখালী এলাকার ফুল চাষী আব্দুর হামিদ বলেন, এবারে বসন্ত উৎসব ও ভালোবাসা দিবস একসাথে হওয়ায় ফুলের বাজার এবার চড়া। তিনি আরো বলেন, ১৪ ফেব্রুয়ারী ভালবাসা দিবসের ছুটির দিন হওয়ায় সব বয়সের মানুষের ঢল নামবে ভালোবাসার দিন। একই এলাকার ফুলচাষী সের আলী, হারুন অর রশীদ, মনির হোসেন ও আঃ সাত্তার জানান, অন্যান্য বছরের তুলনায় এবারের ফুলের বাজার খুব ভালো। যদি দেশের অবস্থা এভাবে থাকে তা হলে ফুলচাষীরা অনেক লাভবান হবে। আর দেশের অবস্থা আরো বেশি খারাপ হয় তা হলে কৃষকদের চরম ক্ষতি হবে। গদখালী বাজারের ফুল ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম জানান, গত ১ মাসে অবরোধে ব্যবসায়ীরা প্রায় ৩ থেকে ৫ কোটি টাকার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিন্তু আগামী ১২ ফেব্রুয়ারী বসন্ত উৎসব ও ১৪ ফেব্রুয়ারী ভালবাসা দিবস উপলক্ষে বাজারে ফুল চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। এভাবে যদি শেষ পযন্ত ফুল বেচাকেনা হয় তা হলে ফুলচাসীসহ ব্যবসায়ীরা অনেকটা লাভবান হবে। ফুল ব্যবসায়ী চান্দালী গাজী, নাসরীন নাহার আশা, আকবার আলী, শাহাজান মিয়া, নজরুল ইসলাম ও রনি আহম্মেদ বলেন অন্যবছরের তুলনায় এবছর ফুল খুব চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। দুটি দিবস উপলক্ষে গদখালী বাজারে প্রতিপিচ গোলাপ বিক্রি হচ্ছে ৭ থেকে ৮ টাকা দরে, গিলাডিউলাস ৫ থেকে ৮ টাকা, জারবেরা ১০ থেকে ১২ টাকা ও গাদা ফুলের প্রতি হাজার ১ শ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

শেয়ার