হরতাল আর অবরোধে জনশূন্য নড়াইলের পিকনিকি স্পটগুলি

Arunima
মো.আল আমিন, নড়াইল ॥
নড়াইল জেলার পিকনিক স্পট ব্যবসায় ধস নেমে এসেছে বর্তমান দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি, হরতাল ও অবরোধের কারণে। ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাসের মাঝামাঝি পিকনিক স্পট ব্যবসার ভরা মৌসুম হলেও এবার চিত্র পাল্টে গেছে নড়াইলের অরুনিমা গলফ ক্লাবসহ তিনটি পিকনিক স্পট কর্ণারের। মাসাধিককাল জনশূন্য হয়ে পড়েছে পিকনিক স্পটগুলি। ফলে টুরিস্ট স্পট এবং স্পটগুলোতে ছোটছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িতরা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে মানবেতর জীবন যাপন করছে।
সবুজ ছায়া ঘেরা চিত্রাপাড়ে গড়ে উঠেছে নড়াইল চিত্রা রিসোর্ট, জেলার লোহাগড়ায় নিরিবিলি পিকনিক কর্নার, স্বপ্নবিথী ও জেলার শেষ সীমানা মধুমতি পাড়ে গড়ে উঠেছে অরুনিমা গলফ ক্লাব। পাখি সমৃদ্ধ অরুনিমা ক্লাবটি পাখির জন্য বিখ্যাত। দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এখানে পাখিপ্রেমিরা ছুটে আসেন পাখি দেখার জন্য। এখানে রয়েছে আগত অতিথিদের জন্য থাকা ও খাওয়ার ব্যবস্থা। প্রতি বছরের ন্যায় ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাসের মাঝামাঝি জেলার চারটি পিকনিক স্পটে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পিকনিক করতে কানায় কানায় ভ্রমন পিয়াসুদের পদচারণায় ভরে ওঠে। প্রতিদিন শতশত মানুষ আসতেন আনন্দ ভ্রমনে। কিন্তু হরতাল আর লাগাতার অবরোধে জনশূন্য হয়ে পড়েছে স্পটগুলি। লাভ তো দূরে থাক লোকশানে হাবুডুবু খাচ্ছে এ সকল ছোটছোট পিকনিক স্পটগুলি। এ সকল প্রতিষ্ঠানে কর্মরত মানুষগুলি আজ বড় অসহায় হয়ে পড়েছে। মানবেতরভাবে কাটছে তাদের জীবন। মালিকদের আয় নেই তাই অনেকেই অভাবের কারণে প্রতিষ্ঠান ছেড়ে চলে গেছেন। সংশ্লি¬ষ্ট সূত্রে জানা গেছে, জানুয়ারির শুরু থেকে দেশের চলমান রাজনৈতিক সমস্যা, হরতাল অবরোধ এর কারণে আনন্দ ভ্রমনকারিরা একেবারেই পিকনিক কর্নারগুলিতে আসছেনা। এ ব্যবসার সাথে কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ বিভিন্ন পেশার কয়েকশ মানুষ সম্পূর্ণ বেকার হয়ে গেছে। পিকনিক কর্নার এলাকার কয়েকশত ছোটছোট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানও বন্ধ হয়ে গেছে।
ট্যুরিজম রির্সোট ইন্ডাস্ট্রি এসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ’র প্রেসিডেন্ট অরুনিমা রির্সোট গলফ্ ক্লাব চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ডের সদস্য খবির উদ্দিন আহম্দে বলেন, বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প অনেক চড়াই-উতরাই পার হয়ে একটি জায়গায় এসে কেবল দাঁড়াচ্ছিল, আর ঠিক সেই সময়ই অনির্দিষ্টকালের জন্য রাজনৈতিক অস্থিরতা শুরু হলো। রাজনৈতিক অস্থিরতা যে কোন দেশের পর্যটন শিল্পের জন্য ভয়াবহ হুমকি ডেকে নিয়ে আসে। আমার পয়সা আমি দেশের উন্নয়নের জন্য বিনিয়োগ করছি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি করছি, দারিদ্র্য বিমোচনে সহায়তা করছি। অথচ তারা আমাদের বিনিয়োগ-কে ধবংস করছে। বর্তমান রাজনৈতিক অস্থিরতায় পর্যটন শিল্প প্রতিদিন প্রায় ২০০ কোটি টাকা ক্ষতি গুনছে। আর এই ২০০ কোটি টাকার মধ্যে ১০০ কোটি টাকার উপরে ক্ষতি হচ্ছে রিসোর্ট মালিকদের। কারন রিসোর্টে বিনিয়োগ বেশি, খরচ বেশি, কর্মসংস্থান বেশি। তাই ক্ষতি বেশি হচ্ছে ।

শেয়ার