রোমাঞ্চকর লড়াইয়ে বাংলাদেশকে হারিয়ে শিরোপা মালয়েশিয়ার

Bangladesh
সমাজের কথা ডেস্ক॥ শেষ মুহূর্তে গোল খেয়ে স্বপ্ন ভাঙল বাংলাদেশের। রোমাঞ্চকর ফাইনালে স্বাগতিকদের ৩-২ গোলে হারিয়ে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের শিরোপা জিতেছে মালয়েশিয়া।
দুই গোলে পিছিয়ে পড়ে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়ে যে সম্ভাবনার আলো বাংলাদেশ জ্বেলেছিল, সেটা যোগ করা সময়ে এসে নিভে গেল। যোগ করা সময়ের গোলে ৩-২ ব্যবধানে হেরে মালয়েশিয়ার কাছে বঙ্গবন্ধু গোল্ড কাপের শিরোপাও হারিয়েছে বাংলাদেশ।
দর্শকে ঠাসা বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে রোববারের ফাইনালে নাজিরুল নাঈম ও কুমাহরানের গোলে এগিয়ে গিয়েছিল মালয়েশিয়া। দ্বিতীয়ার্ধে জাহিদ হাসান এমিলি ও ইয়াসিন খানের গোলে সমতায় ফিরে বাংলাদেশ। তবে যোগ করা সময়ে মোহাম্মদ ফাইজাতের গোলে শিরোপা ছিনিয়ে নেয় অতিথিরা।
টুর্নামেন্টের চার ম্যাচের সবগুলো জিতে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হলো মালয়েশিয়া।
ম্যাচ শুরুর আগেই বড় এক ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। গা গরম (ওয়ার্ম আপ) করতে গিয়ে পায়ের মাংশপেশিতে ব্যাথা পান গত তিন ম্যাচে বাংলাদেশের মিডফিল্ডে আলো ছড়ানো হেমন্ত ভিনসেন্ট বিশ্বাস। তার বদলে মোনায়েম খান রাজুকে শুরুর একাদশে রাখেন বাংলাদেশ কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফ।
সপ্তম মিনিটে আরেকটি ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষের এক ফুটবলারের সঙ্গে বল দখলের লড়াইয়ে চোট পেয়ে মাঠের বাইরে চলে যান আক্রমণভাগের অন্যতম মেরা খেলোয়াড় জাহিদ হোসেন। তার বদলে মাঠে নামেন আব্দুল বাতেন মজুমদার কোমল।
হেমন্ত ও জাহিদকে হারানোয় প্রথমার্ধে বাংলাদেশের খেলা ছন্দহীন হয়ে পড়ে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে দুই গোল তুলে নেয় মালয়েশিয়া। তবে, ম্যাচে প্রথম আক্রমণে যায় স্বাগতিকরা। কিন্তু ১২তম মিনিটে ডি বক্সের জটলার মধ্যে থেকে জাহিদ হাসান এমিলি সুযোগটা কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন। এর কিছুক্ষণ পর জামাল ভূইয়ার দূরপাল্লার শট প্রতিপক্ষের পোস্ট ঘেষে বাইরে চলে যায়।
২০তম মিনিটে বাংলাদেশ গোলরক্ষক শহীদুল ইসলামের সোহেল দারুণ এক সেভ করেন। মোহাম্মদ ফাইজাতের ফ্রি কিক লাফিয়ে উঠে ফিস্ট করেন তিনি। গ্রুপ পর্বে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষের ম্যাচেও পেনাল্টি সেভ করেছিলেন সোহেল।
গোছালো ফুটবল খেলা মালয়েশিয়া ৩১তম মিনিটে এগিয়ে যায়। প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়কে ইয়াসিন খান বক্সের বাইরে ফাউল করলে ফ্রি কিক পায় অতিথি দলটি। তা থেকে বাম পায়ের অসাধারণ বাঁকানো শটে সোহেলকে পরাস্ত করেন মালয়েশিয়া অধিনায়ক নাঈম।
৩৯তম মিনিটে মামুনলের শট মালয়েশিয়ার রক্ষণভাগে বাধা পায়। পরের মিনিটেই প্রতি আক্রমণ থেকে ব্যবধান দ্বিগুণ করে নেয় অতিথিরা। মুহাম্মদ সিয়াজওয়ানের বাড়ানো বল এক দৌড়ে বাংলাদেশের জালে পৌঁছে দিয়ে আসেন অতিথি দলের আরেক ফরোয়ার্ড কুমাহরান।
দ্বিতীয়ার্ধের গোলের জন্য মরিয়া বাংলাদেশ শুরু থেকে আক্রমণের ধার বাড়ায়। ৪৮তম মিনিটে আক্রমণের ফল তুলে নিয়ে ব্যবধান কমায় স্বাগতিকরা। রায়হান হাসানের লম্বা থ্রোয়ে নিখুঁত হেড করেন জাতীয় দলের ডিফেন্ডার নাসিরউদ্দিন চৌধূরী, তা প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড় ফিরিয়ে দেয়ার পর ফিরতি শটে জালে বল জড়িয়ে দেন এমিলি।
তবে গোলটি নাসিরউদ্দিন নাকি এমিলির তা নিয়ে প্রশ্ন আছে। কেননা, নাসিরের হেড প্রতিপক্ষের এক ফুটবলার ফেরানোর পর ফিরতি শটে এমিলি গোল করেন কিনা, তা জানা যাবে ম্যাচ রেফারির রিপোর্ট পাওয়ার পর।
ব্যবধান কমানোর পর প্রতিপক্ষের গোল মুখে প্রচন্ড চাপের সৃষ্টি করে বাংলাদেশ। ৫৪তম মিনিটে সমতায় ফেরা গোল পেয়ে যায় ক্রুইফের শিষ্যরা। মামুনুলের কর্নারে গতিময় হেডে ইয়াসিন খান লক্ষ্যভেদ করে স্কোরলাইন ২-২ করে দেন।

শেয়ার