বিএনপি-জামায়াত দেশকে পাকিস্তান আফগানিস্তান বানাতে চায় —বিএম মোজাম্মেল হক এমপি

Khulnay
সমাজের কথা ডেস্ক॥
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক এমপি বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত দেশকে পাকিস্তান আর আফগানিস্তান বানাতে চায়। তারা আইএসআই’র সদস্যদের নিয়ে সারা দেশে পেট্রোল বোমা হামলা করে নিরীহ মানুষকে পুড়িয়ে মারছে।

রোববার (৮ ফেব্রুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৩টায় ১৪ দলের উদ্যোগে দেশব্যাপী অগ্নিসংযোগ, পেট্রোল বোমা মেরে মানুষ হত্যা, সম্পদ বিনষ্ট ও নৈরাজ্যের প্রতিবাদে এবং নাশকতাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে পিকচার প্যালেস মোড়ে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশ কর্মসূচিতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

বিএম মোজাম্মেল হক বলেন, বিএনপি একটি সন্ত্রাসী দল। তারা কোনো রাজনৈতিক দল নয়। সে কারণে তারা সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে দেশকে অকার্যকর রাষ্ট্র বানাতে চায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলার জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা এই সন্ত্রাসী কর্মকা-কে চিরদিনের মতো স্তব্দ করে দেবো, ইনশাল্লাহ।

তিনি দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, সকল ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে একাত্তরের পরাজিত শত্রু আর পঁচাত্তরের খুনিদের মোকাবেলা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে হবে।

খুলনা ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ মিজানুর রহমান মিজান এমপির সভাপতিত্বে মানববন্ধন ও সমাবেশ বক্তব্য রাখেন, কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, কেন্দ্রীয় নেতা এস এম কামাল হোসেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক খুলনা সিটি মেয়র আলহাজ তালুকদার আবদুল খালেক এমপি, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক শেখ হারুনুর রশীদ, জাতীয় কমিটির সদস্য অ্যাডভোকেট চিশতি সোহরাব হোসেন শিকদার, মহানগর জাসদের সভাপতি রফিকুল হক খোকন, ন্যাপের সভাপতি ফজলুর রহমান, খুলনা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের সভাপতি কাজি আমিনুল হক, সাম্যবাদী দলের নেতা এফ এম ইকবাল, জেপি’র সভাপতি শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন, জাকের পার্টির সভাপতি বদর উদ্দিন বিশ্বাস বদু, ওয়ার্কার্স পার্টির নেতা কমরেড অধ্যাপক আবু সাঈদ, মহানগর জাসদের সাধারণ সম্পাদক মোঃ খালিদ হোসেন, ন্যাপের সাধারণ সম্পাদক তপন কুমার রায়, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার সরদার মাহাবুবার রহমান, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার অধ্যক্ষ আলমগীর কবীর প্রমুখ।

শেয়ার