বাংলাদেশে ‘নাক গলাবে না’ ভারত

Fire Bus
সমাজের কথা ডেস্ক॥ বিএনপি জোটের টানা অবরোধে চলমান নাশকতা ও সহিংস পরিস্থিতির মধ্যে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বিজেপি নেতৃত্বাধীন ভারত সরকার নাক গলাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে।
বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে ভারত সরকারের মুখপাত্র সৈয়দ আকবরউদ্দিন বলেন, “এই বিষয়ে কোনো ধরনের সিদ্ধান্তে যাওয়ার এখতিয়ার ভারত সরকারের নেই।

“আমরা শুধু এটাই চাই, বাংলাদেশ সরকার ও জনগণ ভাল থাকুক। আশা করতে পারি যে, তারা নিজেদের সমস্যা নিজেরাই সমাধান করবে।”

বিএনপিবিহীন ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের বর্ষপূর্তির দিনে সমাবেশ করতে ব্যর্থ হয়ে আবার নির্বাচনের দাবিতে বিএনপিসহ বিরোধী জোটের চলমান মাসব্যাপী অবরোধের মধ্যে গাড়িতে পেট্রোল বোমা ছুড়ে এবং আগুন দিয়ে অর্ধ শতাধিক নিরপরাধ মানুষকে পুড়িয়ে মারা হয়েছে।

অবরোধ-হরতালের কারণে এসএসসি পরীক্ষার সময়সূচিতেও পরিবর্তন আনা হয়েছে। সহিংসতার কারণে পণ্য পরিবহন বাধাগ্রস্ত হওয়ায় দেশের অর্থনীতিও বিপুল ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে।

চলমান অবরোধ-হরতালে সহিংসতা, জ্বালাও-পোড়াও ও প্রাণহানির ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, গণতান্ত্রিক বাংলাদেশে এ ধরনের কর্মকান্ডের কোনো যৌক্তিকতা নেই।

যুক্তরাজ্যও সহিংসতার ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছে।

এদিকে বাংলাদেশের চলমান সঙ্কটকে ‘নজিরবিহীন’ মনে না করলেও নিরাপত্তা পরিস্থিতি নিয়ে কিছুটা হলেও ভারতের উদ্বেগ রয়েছে বলে বিবিসি বাংলার এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

বাংলাদেশ বিষয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকার দল বিজেপির জাতীড় মুখপাত্র এম জে আকবরকে উদ্ধৃত করে বলা হয়েছে, ভারত সেখানকার পরিস্থিতি দ্রুত স্বাভাবিক হোক তা চাইলেও কোনও হস্তক্ষেপ করতে রাজি নয়।

আকবর বলেছেন, “আমরা সব সময় চাই আমাদের দেশ ও প্রতিবেশী দেশে শান্তি থাকুক। কিন্তু প্রতিবেশী দেশে পরিস্থিতি অশান্ত হয়ে উঠলেও সেখানে নাক গলানো বা হস্তক্ষেপ করাটা কিন্তু ভারতের নীতি নয়। সেটা ভারত কখনও করেনি, করবেও না।’
বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে চলমান ‘প্রায় নজিরবিহীন প্রাণঘাতী নাশকতা’র মধ্যে মাসব্যাপী চলমান সঙ্কটে ভারতে ক্ষমতাসীন বিজেপি নেতৃত্ব শেখ হাসিনা সরকারের পাশে রয়েছে বলে ইঙ্গিত মিলেছে।
পশ্চিমবঙ্গের ভারপ্রাপ্ত বিজেপি নেতা সিদ্ধার্থ নাথ সিংয়ের বরাত দিয়ে বিবিসির খবরে বলা হয়, “শেখ হাসিনার আওয়ামী লীগ সরকার ভারতের স্বার্থে প্রতি, আমাদের উদ্বেগের প্রতি দারুণ বিবেচনা দেখিয়েছেন। আর বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কে ভারত যে জাতীয় স্বার্থকেই সবচেয়ে গুরুত্ব দেবে, তা তো বলার অপেক্ষা রাখে না।

“গণতন্ত্রের ওপর আস্থা রাখতে গেলে শেখ হাসিনা-ই কিন্তু আমাদের একমাত্র অপশন। কারণ ভারত মনে করে তিনি বাংলাদেশে গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত একটি সরকারের প্রধান।”
তবে পরিস্থিতি যাই হোক, বাংলাদেশ সঙ্কটের সমাধান খুঁজতে হবে গণতান্ত্রিক কাঠামো ছাড়া অন্য কোনও সমাধানে বিজেপি সরকারেরও সায় নেই।

শেয়ার