পেট্রোল বোমা নিয়ে নাশকতা পরিকল্পনার চেষ্টা ঝিকরগাছা বিএনপি নেতাকে গণধোলাই দিলো জনগণ

gonodholai
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ পেট্রোল বোমাসহ ঝিকরগাছা উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও ইউপি চেয়ারম্যান খোরশেদ আলমকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে দিয়েছে জনগণ। রোববার সকালে এঘটনার পর তাকে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তাকে ভর্তি করা হয়েছে।
এদিকে, শনিবার রাতে দুটি গাড়িতে পেট্রোল বোমায় আগুন ধরিয়ে দেয়ার ব্যাপারে পুলিশ বাদী হয়ে কোতোয়ালি মডেল থানায় অর্ধ শতাধিক বিএনপির ও জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসীদের নাম উল্লেখ করে মামলা হয়েছে। এমামলায় চেয়ারম্যান খোরশেদ ও ইউনুচ আলী আটক করেছে পুলিশ। খোরশেদ আলমের নামে হরতাল অবরোধে নাশকতার চেষ্টা, বোমা বিস্ফোরণসহ তার বিরুদ্ধে অর্ধ ডজন মামলা রয়েছে।
এদিকে খোরশেদ চেয়ারম্যানকে পুলিশ আটক করেছে বলে রোববার বিকেলে প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলন করেছে তার স্ত্রী তহমিনা বেগম।
এসআই কবির হোসেন জানান, সারাদেশে হরতাল ও অবরোধের নামে নাশকতা সৃষ্টি করছে বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসীরা। যশোরে সর্বশেষ শনিবার রাত সাড়ে ১০ টার দিকে যশোরগামী (ঢাকা মেট্রো-ট-১৪-৭৫৪৩) একটি ট্রাক এবং একটি প্রাইভেটকারসহ দু’টি গাড়ি আসছিল। এসময় ঝিকরগাছা উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও ঝিকরগাছা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খোরশেদ আলমের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসীরা ওই গাড়ি দু’টিতে পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করে। এতে গাড়ির বেশ কিছু অংশ পুড়ে যায়।
এছাড়া রোববার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে চেয়ারম্যান খোরশেদ আলমসহ তার সঙ্গীয় আরো কিছু সন্ত্রাসীরা ৪টি পেট্রোল বোমা ও কয়েকটি হাত বোমা নিয়ে আবারো সদর উপজেলার ছোট মেঘলা মাঠের মধ্যে দিয়ে মহাসড়কের দিকে আসছিল। এসময় স্থানীয় জনগণ তাদের দেখে ধাওয়া করে। এক পর্যায়ে চেয়ারম্যানকে আটক করে গণধোলাই দেয়। এসময় চেয়ারম্যানের কাছে থাকা ৪টি পেট্রোল বোমা এবং একটি হাত বোমা উদ্ধার করা হয়। পরে চেয়ারম্যানকে কোতোয়ালি থানা পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে।
এছাড়া এঘটনার সাথে জড়িত অভিযোগে এদিন সন্ধ্যায় যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ইউনুচ আলী নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। তিনি মাগুরা জেলার শ্রীপুর উপজেলার নাকোল গ্রামের আব্দুস সাত্তারের ছেলে।
এব্যাপারে কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই কবির হোসেন বাদী হয়ে খোরশেদ চেয়ারম্যানকে প্রধান এবং তার ভাই মিন্টুসহ অর্ধশতাধিক বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের সন্ত্রাসীদের নাম উল্লেখ করে মামলা করেছেন।
উল্লেখ্য, খোরশেদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে বোমা বিস্ফোরণসহ অর্ধ ডজন মামলা রয়েছে। তবে খোরশেদ চেয়ারম্যানের স্ত্রী এদিন এক সংবাদ সম্মেলনে তার স্বামীকে পুলিশ বিনাকারণে আটক করেছে বলে দাবি করেছেন।

শেয়ার