খালেদার নিষ্ঠুরতা কঠোরভাবে মোকাবেলা হবে

inu
সমাজের কথা ডেস্ক॥ তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দেশে নিষ্ঠুরতা ও বর্বরতা চালাচ্ছেন। তার এই নিষ্ঠুরতা ও বর্বরতাকে অতিক্রম করে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যাত্রা অব্যাহত থাকবে। তার এই নিষ্ঠুরতা কঠিনভাবে মোকাবেলা করা হবে।
সোমবার সচিবালয়ের পিআইডি সম্মেলন কক্ষে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৫’ উপলক্ষ্যে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।
আয়োজনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন বাংলাদেশ এসোসিয়েশন ফর সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের ( বেসিস) সভাপতি শামীম আহসান।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকারের মূল লক্ষ্য হলো ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করা। ইতোমধ্যে আমাদের মাথা পিছু আয় দিগুণ হয়েছে। যা ১২০০ ডলারের কাছাকাছি।’
তিনি বলেন,‘ আমাদের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ২২.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার অতিক্রম করেছে। যা একটি গতিশীল অর্থনীতির পরিচয় বহন করে।’
হাসানুল হক ইনু আরও বলেন, ‘বিদ্যুৎ সরবরাহ ও দেশকে ডিজিটালাইজ করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিহাসে অমর হয়ে থাকবেন।’
এ সময় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন,‘ উনি (খালেদা জিয়া) দেশকে অন্ধকারে রেখে গিয়েছিলেন। আর ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার নিয়ে বলেছিলেন ‘হারিকেন দিয়ে কম্পিউটার চালাবেন। খালেদা জিয়ার সেই উক্তি আজ ভুল প্রমাণিত হয়েছে। আমরা বিদ্যুৎ দিয়েছি, কম্পিউটারও দিয়েছি।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ এমন হীন কাজ নেই যে খালেদা জিয়া করছেন না। তিনি দেশে আজ নিষ্ঠুরতা ও বর্বরতা চালাচ্ছেন। তার এই নিষ্ঠুরতা ও বর্বরতাকে অতিক্রম করে গণতন্ত্রের পথে ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যাত্রা অব্যাহত থাকবে। তার এই নিষ্ঠুরতা কঠিনভাবে মোকাবেলা করবো।’
সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৫ এর বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন, আগামী ৯-১২ ফেব্রুয়ারি ( চার দিন) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এ মেলা শুরু হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেলার উদ্বোধন করবেন।
মন্ত্রী বলেন, ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৫’কে অর্থবহ করতে আমরা আইসিটি খাতের আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্বগণকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। আমাদের ডাকে সাড়া দিয়ে এ পর্যন্ত ১৯টি দেশের ৮১ জন বিদেশি বক্তা তাদের আগমন এবং অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছেন।’
মন্ত্রী বলেন, ‘তারা আমাদের কর্মশালা ও সেমিনারসমূহে অংশগ্রহণ করে তথ্যপ্রযুক্তিতে এগিয়ে যাওয়ার জন্য বাংলাদেশকে মূল্যবান পরামর্শ দেয়ার পাশাপাশি ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমাদের অর্জন ও সামগ্রিক কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করবেন। ফলে এবার ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডকে আমরা আরো বড় পরিসরে নিয়ে যেতে সক্ষম হবো।

শেয়ার