মাগুরায় পেট্রোল বোমায় যশোরের চালক ও সহকারী দগ্ধ, পুড়েছে ট্রাক

agunepure
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ বেনাপোল থেকে ঢাকা যাওয়ার পথে মাগুরার শালিখা উপজেলার আড়পাড়া বাজারে দুর্বৃত্তরা পেট্রোল বোমা মেরে পুড়িয়ে দিয়েছে একটি ট্রাক। দগ্ধ হয়েছেন ট্রাক চালক মোহাম্মদ মিলন (৩৫) ও তার সহকারী (হেলপার) ইমরুল শেখ (১৮)। চালক মিলন যশোরের শার্শা উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের আব্দুর রশিদের ছেলে এবং হেলপার ইমরুল শেখ একই উপজেলার সাদীপুর গ্রামের শরিফুল ইসলামের ছেলে। মঙ্গলবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে। বুধবার সকালে আহতদেরকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন যন্ত্রণাকাতর দগ্ধ মিলন ক্ষোভের সুরে জানান, মঙ্গলবার রাতে বেনাপোল থেকে কাঁচামাল (আদা) নিয়ে ঢাকায় যাচ্ছিলেন। রাত আড়াইটার দিকে শালিখার আড়পাড়া এলাকায় পৌঁছালে চার যুবক ট্রাকে পেট্রোল বোমা মারে। ওই সময় হাইওয়েতে কোন পুলিশ ছিল না। এসময় তারা দুজন পুড়ে যান। ট্রাক থেকে নেমে দৌড়ে পাম্পে যান। অনুনয় বিনয় করেও সেখানে সহযোগিতা না পেয়ে থানায় যান। কিন্তু সেখানেও তারা অবহেলার শিকার হয়েছেন।
যন্ত্রণাকাতর মিলন জানান, ‘দৌড়ে দৌড়ে থানায় গিয়ে স্যার স্যার করিছি। দেখি একটা সেন্ট্রি (পুলিশ সদস্য) বসে রয়েছে। সে বের হচ্চে না। না বেরুলি (বের হলে), আমি বলিছি আমি তো মইরে যাবো এভাবে থাকলি। সেখন ওই লোকটা আধা ঘন্টা এক ঘন্টা আমার ওখানে (থানায়) রেখে দেলে। আমি বল্লাম এভাবে থাকলি তো আমি মইরে যাব। এ না কইরে কন, আমি দৌড়ে চলে যাচ্ছি। এবার ওখান থেকে ফায়ার সার্ভিসের গাড়িতে খবর দেলে। তারপর ফায়ার সার্ভিসে করে আমার নিয়ে গেল মাগুরা সদর হাসপাতালে।’
আহত মোহাম্মদ মিলনের ভাই জিল্লুর রহমান জানান, তারা খবর পেয়ে ভোরে মাগুরা সদর হাসপাতালে গিয়ে দেখি বারান্দার এক কোণে ভাইকে রাখা হয়েছে। তেমন কোন চিকিৎসা নেই। এরপর তারা সেখান থেকে বুধবার সকালে যশোর হাসপাতালে এনে ভর্তি করেছেন।
যশোর ২৫০শয্যা জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক কাজল মল্লিক বলেন, মিলনের শরীরের ১৫ শতাংশ পুড়ে গেছে। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। অপরদিকে ইমরুলের শরীরের ৫শতাংশ পুড়ে গেছে।

শেয়ার