নোয়াখালীতে যুবদল-পুলিশ সংঘর্ষে নিহত ২

Noakhali
সমাজের কথা ডেস্ক॥ নোয়াখালীর চৌমুহনীতে অবরোধ সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবদলকর্মীসহ দুই জন নিহত হয়েছেন, আহত হন পুলিশসহ অন্তত ২০ জন।
এর প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার জেলায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে বিএনপি।

বুধবার বিকালে এ সংঘর্ষ চলাকালে ছয়টি মোটর সাইকেলে অগ্নিসংযোগ ও কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর চালানো হয়।

ঘটনার পর থেকে নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) ইলিয়াস শরীফের নেতৃত্বে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান নিয়েছে।

নিহতরা হলেন রুবেল ও মহসিন। এর মধ্যে রুবেল যুবদলকর্মী বলে জানিয়েছেন জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক কামাক্ষা চন্দ্র দাস।

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ফরিদ উদ্দিন জানান, গুলিবিদ্ধ রুবেলকে মৃত অবস্থায় হাসপাতালে আনা হয়েছে। হাসপাতালে আনার পর মৃত্যু হয় মহসিনের।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকাল ৫টার দিকে ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা অবরোধের সমর্থনে চৌমুহনীতে মিছিল বের করেন।

মিছিলটি রেল গেইটে পুলিশের বাধার মুখে পড়লে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া শুরু হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে বেগমগঞ্জ থানার ওসি আইনুল হক জানান, সংঘর্ষ চলাকালে অবরোধ সমর্থকরা ছয়টি মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ ও কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুর চালায়।

পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

তিনি জানান, সংঘর্ষে বেগমগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) জসিম উদ্দিন, চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জিসান আহম্মদ, চৌমুহনীর টিএসআই সাইফুল সিকদারসহ অন্তত ২০ জন আহত হন।

এরমধ্যে পাঁচজন গুলিবিদ্ধ রয়েছেন বলে জানান তিনি।

শেয়ার