খোলাডাঙ্গার সন্ত্রাসী চক্রের হোতা টিটো-টোকন এমপির ইফতার মাহফিলে, তবুও খুঁজে পায়না পুলিশ ॥ পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা এলাকাবাসীর

nabil
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর শহরতলীর খোলাডাঙ্গা এলাকার সন্ত্রাসী চক্রের হোতা টোকন-টিটোকে খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ। অথচ তারা পুলিশের সামনেই যশোর-৩ সদর আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহম্মেদের সাথে ইফতার পার্টিতে যোগ দিয়েছেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জিলা স্কুল অডিটোরিয়ামে পুলিশ ও এমপির সাথে চিহ্ণিত এ দুই সন্ত্রাসীর ইফতার পার্টিতে যোগ দেয়ায় সাধারণ মানুষের মাঝে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। অবশ্য এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ সহিদুল ইসলাম পাল্টা প্রশ্ন তুলে বলেন, এমপির সামনে থেকে কোনো আসামি আটক করা যায় কি না? ওসির এমন ভূমিকার কারণে ভুক্তভোগী ও এলাকাবাসী এ ব্যাপারে পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
জানা গেছে, যশোর শহরতলীর খোলাডাঙ্গা এলাকায় টোকন-টিটোর নেতৃত্বে একটি সন্ত্রাসী চক্র দীর্ঘদিন ধরে চাঁদাবাজি, ছিনতাই, চুরি ও লুটপাটসহ নানা ধরণের সন্ত্রাসী কর্মকা- চালিয়ে আসছে। এলাকার আমিনুর রহমান পিন্টু জানান, ওই সন্ত্রাসীরা তার কাছে বেশ কিছুদিন আগে ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করায় তার মেয়ের গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। একই এলাকার নুরুন্নবী জানিয়েছেন, সন্ত্রাসী চক্র তার কাছে বিভিন্ন সময়ে ২ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত নিয়েছে। সর্বশেষ সপ্তাহ খানেক আগে ঈদ উপলক্ষে তার কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে ওই চক্র। কিন্তু এককালীন এত টাকা দিতে অস্বীকার করায় তার মায়ের গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। নির্মল কুমার নামে এক ব্যক্তি জানান, সন্ত্রাসী ওই চক্রকে চাঁদা না দেয়ায় বিকেল বেলায় তার বাড়ি থেকে দুটি গরু জোর করে নিয়ে যায়। এ সময় সন্ত্রাসীদের হাতে আগ্নেয়াস্ত্র ও বোমা ছিল। গরু দু’টির আনুমানিক মূল্য ৮০ হাজার টাকা। একই এলাকার তরু নামের এক ব্যক্তির ছেলের কাছ থেকে চাঁদা না পেয়ে নগদ টাকা, মোবাইল ফোন সেট ও বাইসাইকেল ছিনিয়ে নেয় ওই সন্ত্রাসী চক্র।
গত ৭ জুলাই রাত সাড়ে ৮টার দিকে এনামুল কবির বাবু নামে এক ব্যক্তির ল্যান্ডক্রুজার গাড়ি লক্ষ্য করে কয়েকটি বোমা নিক্ষেপ করে ওই চক্রের সদস্যরা। এ সময় বাবুকেও তারা গুলি করে। জীবন বাঁচাতে তিনি আবার গাড়ি নিয়ে পিছনে ফিরে পালিয়ে ওই যাত্রায় বেঁচে যান। গত ১১ জুলাই রাতে ওই চক্র খড়কি গাজীর বাগান এলাকায় মহাসড়কে ডাকাতির চেষ্টা করে। অভিনব কায়দায় যুবতী মেয়েদের রাস্তায় দাঁড় করিয়ে তাদের দিয়ে গাড়ি থামিয়ে ডাকাতির চেষ্টা করে। এ সময় এলাকাবাসী নূর ইসলামের ছেলে ইমন ও খোলাডাঙ্গার আব্দুল আজিজের মেয়ে শারমিন আক্তার তৃপ্তিকে আটক করে পুলিশে দেয়। তৃপ্তি সন্ত্রাসী টোকন-টিটোর নেতৃত্বে ডাকাতির ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে।
শুধু এই কয়েকটি ঘটনাই নয়, ওই এলাকায় একের পর এক চুরি, ছিনতাই, ডাকাতি, চাঁদাবাজি ও লুটপাটের ঘটনা ঘটিয়ে আসছে টিটো-টোকন চক্র। কিন্তু পুলিশ প্রশাসন এ ব্যাপারে নীরব। ওই চক্রের হোতা টোকন-টিটো ও রাজীব এক সময় বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল। এ সকল অপকর্ম অব্যাহত রাখতে তারা বর্তমানে যশোর সদর আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহমেদের ছায়ায় আশ্রয় নিয়েছে। এই চক্রের বিরুদ্ধে একাধিক মামলাও রয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই সন্ত্রাসীরা জিলা স্কুল অডিটোরিয়ামে এমপির ইফতার মাহফিলে যোগ দেয়। এ সময় সেখানে পুলিশের উপস্থিতি ছিল। কিন্তু নিয়মিত মামলার আসামি হলেও পুলিশ তাদের আটক করেনি।
এ ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে কোতোয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সহিদুল ইসলাম বলেন, তাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। পরে পুলিশের সামনে এমপির ইফতার মাহফিলে তাদের উপস্থিতির কথা জানালে ওসি পাল্টা প্রশ্ন করেন, এমপির সামনে থেকে কোনো আসামি আটক করা যায় কি?

শেয়ার