বাগেরহাটে ভন্ডপীর নুরকে গ্রেপ্তার করেনি পুলিশ ॥ খানকা শরীফের এতিম শিশুদের মানববন্ধন॥ নির্যাতনের বর্ণনা

Bagerhat Photo
বাগেরহাট প্রতিনিধি॥ বাগেরহাটের ভন্ডপীর নুর মোহাম্মদের গ্রেপ্তার ও বিচারের গতকাল তৃতীয় দিনের মতো মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়েছে। তবে এবার মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে গ্রেফতার দাবি করলো খানকা শরীফের এতিমরা। তাদের সাথে যোগ দেয় এলাাকার সর্বস্তরের মানুষ। সোমবার সকাল ১১ টায় খানকা শরীফের সামনে এতিম শিশুরা এই মানববন্ধন কর্মসূচীর আয়োজন করে ভন্ডপীরের বিরুদ্ধে নানা শ্লোগান দেয়। মানববন্ধনে স্বত:স্ফুর্তভাবে অংশ নেয় এলাকার বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নারী পুরুষ। তবে বিক্ষুব্ধ জনতার দাবি পুরণে পুলিশ এখনো ভন্ডপীরকে গ্রেফতার করতে পারেনি। তার গ্রেফতার নিয়ে পুলিশ তালবাহনার আশ্রয় নিলে ধর্মপ্রাণ মানুষের ক্ষোভের আগুন জ্বলে ওঠার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে বলে জানিয়েছেন সচেতনমহল।
বক্তব্য রাখেন সাইফুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান বাবুল, আব্বাস, রনজিদা বেগম, হাজেরা বেগম, তানজিরা বেগম প্রমুখ। বক্তারা অভিযোগ করেন, ভন্ড পীর নুর মোহাম্মদ গত ২৫ বছর ধরে খানকায় স্থাপিত মসজিদে এলাকাবাসির নামাজ পড়তে দেয়নি। এই মসজিদে খানকায় অধ্যায়নরত এতিম ও পীরের কিছু মুরিদ ছাড়া নামাজ আদায় করতে পারেন না। সেখানে কেউ গেলে তাকে জোর করে বের করে দেয়া হয় ও বিভিন্ন ধরনের ভয়-ভীতি দেখানোর বিস্তর অভিযোগ বেরিয়ে আসছে। শুক্রবার জুমার নামাজের জন্য কিছু সময়ের জন্য মসজিদের প্রধান ফটক খোলা রাখা হলেও পরে তা বন্ধ করে দেয়া হয়। নুর মোহাম্মদ তার খেয়াল খুশি মত নামাজ পাড়াতেন। যেখানে জুমার নামাজ দ্পুুর ২টার ভেতর শেষ হয় অন্যান্য মসজিদে, সেখানে নুর মোহাম্মদ ৩টা থেকে সাড়ে ৩টার দিকে নামাজ শুরু করতেন। এছাড়া এলাকার মানুষ খানকা শরীফের ভেতর হতে পানি আনতে গেলে বাধা দিয়ে তিনি গুহাগার হয়েছেন। এসময় এতিম শিশুরা সাংবাদিকদের কাছে তাদের উপর নির্যাতনের বর্ণনা দেন। এলাকাবাসি খানকা শরীফের মসজিদটি সকলের জন্য উন্মুক্ত করে দিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। উল্লেখ ১৭ জুলাই সকালে বাগেরহাট শহরের আমলাপাড়াস্থ খানকা শরীফের নামধারী পীরখ্যাত শেখ নুর মোহাম্মদের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তার দুই স্ত্রী ও চার সন্তানকে বন্দি অবস্থা থেকে উদ্ধার করে। পর্দার দোহাই দিয়ে প্রথম স্ত্রীকে ৪১ বছরসহ অন্যদের বিভিন্ন মেয়াদে ঘরে তালা বন্দি করে রাখা হয়েছিল। ঘরে তালাবদ্ধ রাখায় ৩৫ বছরের অবিবাহিত মেয়েসহ ৫ সন্তান সুর্য্যের আলো দেখতে পারেনি। ভন্ডপীরের এক পুত্রের অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে তাদের উদ্ধারের পর প্রকৃত ঘটনা বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। এনিয়ে গত ৩দিন মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হলো। তবে পুলিশ এখনো তাকে গ্রেফতার করেনি।

শেয়ার