যশোরে পৃথক অস্ত্র গুলি উদ্ধারের ঘটনায় দু’টি মামলা

mamla
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ শনিবার ভোরে যশোরে অস্ত্র ও গুলিসহ মিরাজ নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। অপরদিকে শুক্রবার রাতে ধারালো ও আগ্নেয়াস্ত্রসহ আটক বোচা শামিমের বিরুদ্ধেও আলাদা মামলা হয়েছে। উপশহর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মিরাজ মোসাদ্দেক এবং ডিবি পুলিশের এএসআই আলমগীর হোসেন কোতোয়ালি থানায় পৃথক এ দুইটি মামলা করেন। আসামিরা হলো, উপশহর ট্রাক স্ট্যান্ড বস্তির মৃত মোহাম্মদ আলীর ছেলে মিরাজুল ইসলাম মিরাজ ও ঘোপ কবরস্থান রোডের মিজানুর রহমানের বাড়ির ভাড়াটিয়া মোতালেব হোসেনের ছেলে শামিম ওরফে বোচা শামিম।
কোতোয়ালি থানার এসআই সাইদুজ্জামান জানান, সন্ত্রাসী আটক এবং মাদক ও অস্ত্র উদ্ধারে বিভিন্ন এলাকায় অভিযানে যায় পুলিশ। শনিবার ভোর ৫টা ১০ মিনিটে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডিবি’র এএসআই আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ অভিযানে যায় উপশহর ট্রাক স্ট্যান্ড বস্তিতে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে মিরাজ ঘর থেকে বেরিয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এ সময় ধাওয়া করে তাকে আটক করা হয়। পরে জিজ্ঞাসাবাদে তার দেখানো মতে ঘরে বিছানার নিচ থেকে একটি পাইপগান ও একটি বন্দুকের কার্তুজ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে।
তিনি আরো বলেছেন, মিরাজ একজন চিহ্নিত সন্ত্রাসী। তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় একাধিক মামলার আছে।
এদিকে শুক্রবার রাতে উপশহর ফাঁড়ি পুলিশ শহরের ঘোপ কবরস্থান রোডের মিজানুর রহমানের বাড়ির ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী বোচা শামিমকে আটক করে। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে তার কছে অস্ত্র আছে বলে স্বীকার করে। তবে তার অস্ত্রটি ইব্রাহিমের বাড়ির ভাড়াটিয়া এবং তার সহযোগি অপুর ভাড়াটিয়া ঘরে রাখা আছে। তার দেখানো মতে পুলিশ অপুর ঘরে ওয়্যারড্রপের ড্রয়ারের মধ্যে একটি ব্যাগে থাকা একটি এয়ার পিস্তল, দু’টি ম্যাগজিন, তিন রাউন্ড গুলি, একটি চাইনিজ কুড়াল, একটি চাকু, একটি চা-পাতি কয়েকটি সাইকেলের চেইন ও একটি স্কুল ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় থানায় বোচা শামিমের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে সাংবাদিক আরমান সজলের বাড়িতে বোমা হামলা এবং গরু চুরি মামলাসহ একাধিক মামলা রয়েছে।

শেয়ার