‘অবৈধ’ অভিবাসী নিয়ে আলোচনা চায় ভারত

Indian
সমাজের কথা ডেস্ক॥ ‘স্পর্শকাতর’ অবৈধ অভিবাসী সমস্যা সমাধানে বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছে ভারত।
নরেন্দ্র মোদি সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেছেন, তার সাম্প্রতিক ঢাকা সফরের পর দুই দেশের সম্পর্কে যে ‘গুণগত’ পরিবর্তনের ধারার সূচনা, তার মধ্যে দিয়ে আলোচনার ক্ষেত্রটি তৈরি হয়েছে।
ঢাকায় তিন দিনের সফর শেষে শুক্রবার দেশে ফিরে গেছেন সুষমা স্বরাজ।
এর আগে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমেকে দেয়া এক লিখিতি সাক্ষাৎকারে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অবৈধ অভিবাসী ইস্যুটি ‘সতর্কভাবে মোকাবেলায়’ আলোচনায় সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে জড়িত করার পরামর্শ দিয়েছেন।
তার মতে, “অবৈধ অভিবাসী যে কোনো দেশের জন্যই স্পর্শকাতর বিষয় এবং বিষয়টি সতর্কভাবে মোকাবেলা উচিত।”
ভারতের নতুন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নির্বাচনী সভা-সমাবেশে ক্ষমতায় গেলে ‘বাংলাদেশি অবৈধ অভিবাসীদের’ বিতাড়নের হুমকি দিয়েছিলেন।
ওই ‘হুমকির’ পর নব্বইয়ের দশকে বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারের সময় বাংলা ভাষাভাষীদের ‘পুশব্যাক’ করার আশঙ্কা আবার নতুন করে দেখা দেয়।
তবে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ নেওয়ার পর মোদি বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টনসহ অমীমাংসিত বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনার ইতিবাচক ইঙ্গিত দেয়ায় পরিস্থিতি অনেকটাই পাল্টে গেছে।
পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে মোদি তার পরররাষ্ট্রমন্ত্রীকে প্রথম বিদেশ সফরে ঢাকা পাঠান, যে সফরকে ভারতের নতুন সরকারের ‘সতর্ক সিদ্ধান্ত’ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন ওই মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র।
সফরের সময়ই সুষমা স্বরাজ জানিয়ে দেন, ভারতের নতুন সরকারের ‘শুভেচ্ছা আর বন্ধুত্বের বার্তা’ নিয়ে এসেছেন তিনি।
সাক্ষাৎকারে সুষমা বলেন, “এই সফর দুই দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের বিষয়ে এখানকার শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে আমার আলোচনার সুযোগ করে দিয়েছে।
“আমি আপনাদের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে যে আলোচনা করেছি, সেসব খুবই উষ্ণ এবং ফলপ্রসূ ছিল। এসব আলোচনা ভবিষ্যতে সহযোগিতাপূর্ণ আলোচনার ভিত্তি তৈরি করে দিতে পারে।

শেয়ার