যশোরে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ক্যাশ অফিসারকে হয়রানী ॥ শাখা ম্যানেজার ও ডেপুটি ম্যানেজারের বিরুদ্ধে মামলা

m trust bank
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোরে মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ক্যাশ অফিসার মনিরুজ্জামানকে আটক রেখে ভয়ভীতি দেখিয়ে ও মারপিট করে নগদ টাকা আদায় ও ১৮ লাখ টাকার অলিখিত চেকে স্বাক্ষর করানোর ঘটনায় আদালতে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। মঙ্গলবার ক্যাশ অফিসার মনিরুজ্জামানের বোন শামিমা খাতুন যশোর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ অভিযোগ করেন। বিচারক মারুফ আহমেদ অভিযোগটি সোনালী ব্যাংক কর্পোরেট শাখার এজিএমকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দিয়েছেন। এতে অভিযুক্ত করা হয়েছে একই ব্যাংকের শাখা ম্যানেজার মিজানুর রহমান ও ডেপুটি ম্যানেজার শেখ জাভেদ বিন মোহাম্মদকে।
অভিযোগে জানাগেছে, ৯ মার্চ থেকে ১২ মার্চ পর্যন্ত মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক আরএন রোড শাখায় ২৫ লাখ টাকা ক্যাশ ঘাটতি পড়ে। শাখা ম্যানেজার ও ডেপুটি ম্যানেজার ওই টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে। ওই টাকা পূরণ করতে না পেরে ওই দু’কর্মকর্তা বিষয়টি ক্যাশ অফিসার মনিরুজ্জামানের উপর চাপ সৃষ্টি করেন। এক পর্যায়ে মনিরুজ্জামানকে তিনদিন আটক রেখে তার বাড়িতে সংবাদ দেয়া হয়। বাড়ি থেকে তার স্ত্রী এলে তাকেও আটকে রাখা হয়। স্বামী-স্ত্রী দু’জনকে আটক রেখে মারপিটের পর বাড়িতে থাকা মনিরুজ্জামানের বোন শামিমা খাতুন কুষ্টিয়া মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের মাধ্যমে আট লাখ বিশ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেন। তাদেরকে আটক রেখে দু’টি চেকের পাতায় স্বাক্ষর করিয়ে নেন। এর মধ্যে একটিতে ১৮ লাখ টাকা লেখা এবং অপরটি অলিখিত । পরে ওই ক্যাশ অফিসার মনিরুজ্জামান ও যশোরের আলোচিত প্রতারক আনোয়ারা বেগমকে মামলা দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হয়। মনিরুজ্জামান ও তার স্ত্রীকে তিনদিন আটক রেখে মারপিট ও নগদ টাকা আদায় এবং ব্যাংক চেকের পাতায় স্বাক্ষর নেয়ার ঘটনায় আদালতে এ অভিযোগ দেয়া হয়েছে।

শেয়ার