চিরনিদ্রায় সায়িত ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান একরাম॥ আজ ফুলগাজীতে হরতাল

full
সমাজের কথা ডেস্ক॥ ফেনী ও ফুলগাজীতে তিন দফা নামাজে জানাজা শেষে বুধবার দুপুরে পারিবারিক কবরস্থানে প্রয়াত চেয়ারম্যান একরামুল হক একরামকে দাফন করা হয়।
এদিকে, একরাম হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ফেনীর ফুলগাজী উপজেলায় আজ বৃহস্পতিবার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ।
বুধবার বিকালে ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শোক ও স্মরণসভায় এ হরতালের ঘোষণা দেয়া হয়।
এদিকে দাফনের পর দুপুরে একরাম সমর্থকরা ফুলগাজীর বন্দুয়ায় একটি বেইলি ব্রিজের পাটাতন তুলে নিলে ফেনীর সঙ্গে পরশুরাম ও ফুলগাজীর যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।
ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল আলিম জানান, দলের উপজেলা যুগ্ন সম্পাদক নুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে বুধবার বিকালে দলীয় কার্যালয়ে একরাম চেয়ারম্যান স্মরণে শোক ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় বক্তারা হত্যাকারীদের গ্রেপ্তার করে বিচারের দাবি জানান। সভাতেই হরতালের ঘোষণা দেয়া হয়।
ফেনী মডেল থানার ওসি মাহাবুব মোর্শেদ জানান, মঙ্গলবার মধ্যরাত ও বুধবার ভোরে শহরের একাডেমী ও বিরিঞ্চি এলাকায় অভিযান চালিয়ে হত্যায় জড়িত সন্দেহে ২৩ জনকে আটক করা হয়েছে।
এছাড়া হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত হয়েছে এমন সন্দেহে একটি লাল রংয়ের প্রাইভেট কার (চট্ট-মেট্রো-প-১১-০০১৬) ও দুইটি মোটরসাইকেল (ফেনী-হ-১১-৩৬০৯, অন্যটি নম্বরবিহীন) পরিত্যক্ত অবস্থায় শহরের বিরিঞ্চি এলাকা থেকে উদ্ধার করা হয়।
ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ জানান, আটক ২৩ জনের মধ্যে প্রাথমিক তদন্ত শেষে বিরিঞ্চি এলাকার জাকির হোসেনের ছেলে মোহাম্মদ ইকবাল (২১) ও একাডেমী এলাকার আবুল হোসেনের ছেলে শাখাওয়াত হোসেনকে (২৪) এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।
বাকি ২১ জনের মধ্যে ৫ জনকে অন্য মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো এবং ১৬ জনকে ছেড়ে দেয়া হয়।
হত্যাকাণ্ডের ১২ ঘণ্টা পর মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে নিহতের বড় ভাই রেজাউল হক জসিম বাদী হয়ে ফেনী জেলা তাঁতী দলের আহবায়ক বিএনপি নেতা মাহাতার উদ্দিন আহম্মদ চৌধুরী মিনারের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত পরিচয় ৩০-৩৫ জনকে আসামি করে ফেনী মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
রেজাউল হক জসিম জানান, বুধবার সকাল ৯টায় ফেনীর মিজান ময়দানে প্রথম জানাজা, ১১টায় ফুলগাজী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে দ্বিতীয় ও সাড়ে ১১টায় নিজ গ্রাম বন্দুয়া দৌলতপুর গ্রামে তৃতীয় জানাজা শেষে একরামকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।
এসব জানাজায় এলাকার হাজার হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন বলেও তিনি জানান।
ফেনীর সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি-সার্কেল) সামছুল আলম সরকার জানান, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিক্ষুব্ধ একরাম সমর্থকরা ফেনী-ফুলগাজী-পরশুরাম সড়কের বন্দুয়া ব্রিজের সামনে ২-৩টি গাড়ি ভাংচুর করে। এ কারণে বন্দুয়া ব্রিজের পাটাতন তুলে ফেলায় ফেনীর সঙ্গে ফুলগাজী ও পরশুরামের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।
মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ফেনী শহরের একাডেমী এলাকার বিলাসী সিনেমা হলের সামনের সড়কে ৫০-৬০ জন সন্ত্রাসীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান ও ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একরামুল হক একরামের গাড়ি আটকে হাতবোমা ফাটিয়ে চেয়ারম্যাকে কয়েকরাউন্ড গুলি করে, কুপিয়ে আহত করে। পরে গাড়িতে পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে তাকে হত্যা করে পালিয়ে যায়।

শেয়ার