পাসপোর্ট অফিসে ঘুষের রেট বৃদ্ধি নিয়ে গোলমাল ॥ সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে ৩ সাংবাদিক লাঞ্ছিত

pass
লাবুয়াল হক রিপন ॥
যশোর পাসপোর্ট অফিসে ঘুষের রেট বৃদ্ধি নিয়ে গতকাল দালালদের সাথে কর্মচারিদের গোলমাল হয়। এ সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে লাঞ্ছিত হয়েছেন ৩ সাংবাদিক। ঘটনার নায়ক অফিস সহকারী আশরাফুল ইসলাম সুমনের বিরুদ্ধে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে কর্তৃপক্ষ।
যশোর, নড়াইল, ঝিনাইদহ ও মাগুরা জেলার আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস যশোরে। এই চার জেলা থেকে প্রতিদিন গড় আবেদন জমা পড়ে ৫ শতাধিক। এর মধ্যে ৩’শ থেকে ৪’শ পাসপোর্ট আবেদন চ্যানেল সিস্টেমের মাধ্যমে জমা দিতে অফিস স্টাফদের আবেদন প্রতি ঘুষ দিতে হয় ৯’শ টাকা। ইতিপূর্বে ওই ঘুষের রেট ছিল ৭’শ টাকা। গত বছরের ২০ অক্টোবর এ অফিসে আবু নোমান মোহাম্মদ জাকির হোসেন উপ-পরিচালক হিসেবে যোগদান করেন। তিনি যোগদানের পর আবেদন প্রতি ঘুষের রেট ২’শ টাকা বৃদ্ধি করা হয়। বৃহস্পতিবার থেকে ফের রেট বাড়িয়ে ৯’শ টাকার স্থলে ১১’শ টাকা করা হয়। রোববার এক দালাল পূর্বের রেটে ৩০টি আবেদন জমা দিতে আসে। ওই অফিসের অফিস সহকারী আশরাফুল ইসলাম সুমন ৩০টি আবেদনে ৬ হাজার টাকা বেশি দাবি করায় দালালদের সাথে সুমনের বাকবিতন্ডা হয়। এ সময় সুমন উত্তেজিত হয়ে দালালদের সাথে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে সন্ধ্যা ৬টার দিকে দৈনিক সমাজের কথার স্টাফ রিপোর্টার লাবুয়াল হক রিপন, লোকসমাজের মীর মঈন হোসেন মুসা ও স্পন্দনের কাজী আশরাফুল আজাদ পাসপোর্ট অফিসে যান। এসময় সেখানে ঘুষের টাকা সামনে নিয়ে অফিস সহকারী সুমনকে দালালদের সাথে বাকবিতণ্ডা করতে দেখা যায়। এ সময় সেখানে সাংবাদিকদের উপস্থিত দেখে আরো উত্তেজিত হন সুমন এবং গালিগালাজ করতে থাকেন। সাংবাদিকরা এর প্রতিবাদ করলে তিনি পাসপোর্ট অফিসের ক্লপসিবল গেটে তালা লাগিয়ে দেন। বিষয়টি পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হলে কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ এমদাদুল হক শেখ সেখানে যান। তার উপস্থিতিতে পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক সাংবাদিকদের কাছে ক্ষমা চান এবং সুমনকে তিনদিনের মধ্যে এ ঘটনার কারণ দর্শানোর জন্য নোটিশ ইস্যু করেন। উল্লেখ্য পাসপোর্ট অফিসে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশের হাবিলদার ওয়াহিদুল ইসলাম এ ঘটনার সময় সামনে থাকলেও তিনি নিরবতা পালন করেন। পাশাপাশি ওই অফিসের মধ্যে আটক থাকা দালালদের বের হতে সহায়তা করেন।
অপর একটি সূত্র জানায়, পাসপোর্ট অফিসের প্রায় ডজন খানেক স্টাফ আছে যারা শতাধিক দালাল নিয়ন্ত্রণ করে। সে কারণে দালালদের মাধ্যমে ছাড়া কোন পাসপোর্ট আবেদন গ্রহণ করা হয় না। নাম প্রকাশ না করার শর্তে অফিসের এক স্টাফ জানায় ঘুষের রেট কমানো বা বৃদ্ধি করা সম্পূর্ন ডিডি স্যারের নির্দেশে হয়। উপ-পরিচালক আবু নোমান মোহাম্মদ জাকির হোসেন এ অভিযোগ অস্বীকার করেন।

শেয়ার