কোটচাঁদপুরে ৫০ বিঘা জমির পান বরজ আগুনে পুড়ে ছাই॥ কোটি টাকার ক্ষতি

pan boroje agun
কোটচাঁদপুর প্রতিনিধি ॥
ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুরে ৫০ বিঘা জমির পান বরজ আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলার জালালপুর গ্রামে এ অগ্নিকাণ্ডে কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। এতে নিঃস্ব হয়ে গেছে অন্তত ২০টি পরিবার। ক্ষতিগ্রস্তদের অভিযোগ, দুর্বৃত্তরা শত্রুতাবশত তাদের পানবরজে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে।
ক্ষতিগ্রস্থ পানচাষী ও এলাকাবাসী জানান, বৃহস্পতিবার বিকাল ৩টার দিকে ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলার জালালপুর গ্রামের শতদল রায়ের বরজ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। মুহূর্তের মধ্যে আগুন সারা মাঠের পান বরজে ছড়িয়ে পড়ে। মাত্র আধাঘন্টার ব্যবধানে একে একে ৫০টি বরজ পুড়ে ছাই হয়ে যায়। আগুনে মাঠের একশটি মেহগনি গাছ, ৫০টি খেজুর গাছ, এক বিঘা কলাগাছ ও বেশ কয়েকচি কাঁঠাল গাছও ভস্মিভূত হয়। এসময় স্থানীয়রা যে যার মতো পানি, বালি, বাঁশ-লাঠি দিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে চেষ্টা করে। আগুন নেভাতে গিয়ে ৫ গ্রামবাসী আহত হন। এ অগ্নিকান্ডে গ্রামের ঝন্টু রায়, মন্টু রায়, মানু, শিক্ষু রায়, শতদল রায়, মিজানুর রহমান, সলেমান আলি, গৌতম কুমার, নরত্তম রায়, তিরবু মাস্টার, অরবিন্দ কুমার, বিশ্বজিৎ কুমার, নিশিত কুমার, সিন্দু রায়, জয় রায়, কৃষ্ণ পদ, কায়েম আলিসহ অন্তত ২০টি কৃষক পরিবার সর্বস্বান্ত হয়েছে। এর সাথে জড়িত প্রায় ৪ শত শ্রমিকও দিশেহারা। আর আগুন লাগার খবরে পান বরজ মালিকরা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাদেরকে কোটচাঁদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
মাত্র ১৮ কাঠা জমি লিজ ও ব্যাংক থেকে ৫০ হাজার টাকা ঋন নিয়ে পান বরজ করেছেন গ্রামের গৌতম কুমার। বরজ পুড়ে ছাই হয়ে যাওয়ার তিনি সর্বস্বান্ত হয়ে গেছেন। ক্ষেতের পাশে কাঁদতে কাঁদতে তিনি বলছিলেন, আমার পরিবার নিঃস্ব হয়ে গেছে।
ক্ষতিগ্রস্থ শতদল রায় অভিযোগ করেন, দুর্বৃত্তরা শত্রুতাবশত তাদের পানবরজে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। আর ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দেরি করে আসায় আগুন চারপাশে ছড়িয়ে পড়ে।
খবর পেয়ে কোটচাঁদপুর ফায়ার সার্ভিসের দুইটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে ৩ ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। পানির অভাবে আগুন নেভাতে দেরি হয়েছে বলে কোটচাঁদপুর ফায়ার সার্ভিসের টিম লিডার আলাউদ্দীন খান। এদিকে স্থানীয় সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ নবী নেওয়াজ ঘটনাস্থলে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের খোঁজখবর নেন এবং সরকারি সহযোগীতার আশ্বাস দেন। সংসদ সদস্য বলেন, ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে খুব দ্রুত সহায়তা দেওয়া হবে। পানচাষীরা এই ক্ষতি যাতে দ্রুত কাটিতে উঠতে পারেন সেজন্য তিনি ব্যবস্থা নিবেন।
কোটচাঁদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবপ্রসাদ পাল বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকদের ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণ করার কাজ চলছে। তাদের সরকারি সহযোগীতার দেওয়া প্রয়োজন বলে তিনি জানান।

শেয়ার