মেঘনায় দু’শতাধিক যাত্রী নিয়ে লঞ্চ ডুবি

lonch
সমাজের কথা ডেস্ক॥
মুন্সিগঞ্জ থেকে গজারিয়ার মেঘনা নদীতে ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যাওয়া লঞ্চ এমভি মিরাজ-৪ থেকে এ পর্যন্ত নারী ও শিশুসহ ১০ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।
বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে গজারিয়া উপজেলার দৌলতপুর গ্রাম সংলগ্ন মেঘনা নদীতে এ লঞ্চডুবির ঘটনা ঘটে।
নিহতদের মধ্যে তিনজনের নাম জানা গেছে। এরা হলেন- জামাল শিকদার (৫৫) ও তার ছেলে আবিদ শিকদার (২৮) এবং টুম্পা বেগম (২৬)। তাদের সবার বাড়ি শরীয়তপুরের সুরেশ্বর বলে জানা গেছে।
খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ থেকে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় সন্ধ্যা ৬টার দিকে ঘটনাস্থলে গিয়ে পৌঁছায়।
এছাড়া ৩০ থেকে ৪০টা ইঞ্জিনচালিত ট্রলার নিয়ে মেঘনা নদীতে তল্লাশি চালাচ্ছে নৌবাহিনী, পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন। নদীর দু’পাড়ে শত শত নারী-পুরুষ ও স্বজনরা ভিড় করছে।
ঘটনার পর সন্ধ্যায় নৌপরিবহন মন্ত্রী শাহজাহান খান ও বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যান শামসুদ্দোহা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছেন।
এছাড়া মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসক সাইফুল হাসান বাদল, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার জাকির হোসেন, এএসপি (সদর সার্কেল) এমদাদ হোসেন, ঢাকা থেকে এডিশনাল ডিআইজ (অপরাধ) শফিকুল ইসলাম ঘটনাস্থলে উপস্থিত রয়েছেন।
তারা জানিয়েছেন, ডুবে যাওয়া লঞ্চটি উদ্ধারে প্রশাসন এবং স্থানীয় লোকজন জোর তৎপরতা চালাচ্ছে। উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে কিছুক্ষণের মধ্যেই উদ্ধার কাজ শুরু করবে। উদ্ধারকৃতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব রকম প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।
ওই লঞ্চের যাত্রী আব্দুর রাজ্জাক বাংলানিউজকে জানান, সদরঘাট থেকে দুপুর একটার দিকে শরীয়তপুরের উদ্দেশে রওয়ানা হয় লঞ্চটি। পথে মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলার দৌলতপুর এলাকায় পৌঁছালে হঠাৎ ঝড়ের কবলে পড়ে। এতে মাত্র ৩ মিনিটের মধ্যে লঞ্চটি ডুবে যায়। লঞ্চটিতে ২০০ থেকে ২৫০ যাত্রী ছিলেন বলে জানান তিনি।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, লঞ্চের চালক একটু বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিলে পাশের একটি শাখা নদীতে যেতে পারতেন। তাতে অন্তত এতো বেশি লোকের মৃত্যু এড়ানো সম্ভব হতো।
ঘটনাস্থলে গজারিয়া নৌ-ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) বজলুল হকসহ স্থানীয় লোকজন ট্রলারে করে ডুবে যাওয়া লঞ্চটির অবস্থান শনাক্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে।
লঞ্চডুবির খবর পেয়ে নারায়ণগঞ্জ থেকে উদ্ধারকারী জলযান ‘প্রত্যয়’কে ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়েছে বলে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিওটিএ) জনসংযোগ কর্মকর্তা আশফাকুর রহমান রনি বাংলানিউজকে জানান।
গজারিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস আহমেদ বাংলানিউজকে জানান, প্রশাসনের ও স্থানীয় লোকজন উদ্ধার কাজ চালাচ্ছে।

শেয়ার