যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে সরকারি অডিটে ধরা পড়লো ৩২ লাখ টাকার ঘাপলা

jessore sadar hospital
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ইসিজি প্যাথলোজি আল্ট্রাসনগ্রাফ পেয়িং বেড ও ঔষুধসহ চিকিৎসা সরঞ্জাম কেনাকাটা ছাড়াও বেশ কয়েকটি আর্থিক খাতে ৩২ লাখ টাকার ঘাপলা ধরা পড়েছে। দু’সপ্তাহের অডিটে বড় ধরণের এই অর্থ আতœসাতের বিষয়টি ওঠে আসে। অডিট দল হাসপাতাল ছাড়ার আগে বিষয়টি হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. ইয়াকুব আলীকে অবহিত করেছেন। তত্ত্বাবধায়ক সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
সুত্র জানায় গত ২৯ এপ্রিল ঢাকা থেকে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন ৩ সদস্যের একটি অডিট টীম যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে আসেন। পরদিন শুরু করেন অডিট কার্যক্রম। চলে ১৪দিন। এ সময় তারা হাসপাতালের আর্থিকখাতগুলোর ওপর পর্যালোচনা করেন। একাজে সর্বোচ্চ সহযোগীতা পাওয়া না গেলেও তত্ত্বাবধায়কের দিক থেকে অসযোগীতা করা হয়নি দাবি করে অডিট টীমের এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান. হাসপাতালের আর্থিক আয়-ব্যয়ের খাতে ২০০৯ সাল থেকে ১৩ সালের ক্লোজিং মাস পর্যন্ত ৩২ লক্ষাধিক টাকা দুর্নীতি করা হয়েছে। অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারিদের পকেটে গেছে সরকারের এই অর্থ। বিষয়টি থামাচাপা দেয়ার চেষ্টা চলছে। এ ব্যাপারে তত্ত্বাবধায়ক ডা. ইয়াকুব আলী জানান. পেয়িং বেডের ভাড়া ৩২৫ টাকা হলেও অনেক ক্ষেত্রে ২শ টাকা নেয়া হয়। যেকারণে দুর্নীতির অংক লম্বা হয়েছে। এরবাইরে আর কোন মন্তব্য করতে চাননি তিনি।

শেয়ার