৭ খুনে আমার পরিবারের কেউ জড়িত নয়

montry
সমাজের কথা ডেস্ক॥ নারায়ণগঞ্জের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম ও আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়ার জামাতা লে. কর্নেল তারেক সাঈদ জড়িত বলে অভিযোগ উঠে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, ‘নারায়ণগঞ্জে সেভেন মার্ডার মামলায় অভিযুক্তদের সঙ্গে আমার পরিবারের কোনো সদস্যের কোনো যোগাযোগ বা ব্যবসায়িক লেনদেন ছিল না।’

শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউস্থ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বামী ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে তিনি এ কথা বলেন।
মায়া বলেন, ‘এ ঘটনার সঙ্গে আমার পরিবারের সদস্যদের জড়িয়ে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের সংবাদ পরিবেশিত হচ্ছে। যা আমাকে ভীষণভাবে মর্মাহত করেছে এবং আমার পরিবারের সন্মানহানি করেছে।’
মন্ত্রী বলেন, ‘এ ঘটনায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থার তদন্ত কমিটি তদন্ত কাজ শুরু করেছে। এ তদন্ত কাজ যেন কোনোভাবেই প্রভাবিত না হয়, সেজন্য আমি কোনো রকম মন্তব্য করা থেকে বিরত আছি।’
তদন্তে প্রকৃত সত্য বেরিয়ে আসবে আশা প্রকাশ করে আওয়ামী লীগের এ নেতা বলেন, ‘নিহতদের পরিবারের মতো আমিও প্রকৃত অপরাধীদের আইনানুগ শাস্তি প্রত্যাশা করছি।’ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গভীর শোক ও নিহতদের পরিবারের প্রতি আন্তরিক সমবেদনাও জানান সরকারের এই মন্ত্রী।
এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুকুল চৌধুরী, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম, আওলাদ হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুল হক সবুজ প্রমুখ।

শেয়ার