যশোর হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ॥ অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি

doctor
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ যশোর হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক শিক্ষা বোর্ড ঢাকার সুপারিশে যশোরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলামের নেতৃত্বে মঙ্গলবার তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি এ তদন্ত কাজ শুরু করেন। কমিটির আহবায়ক সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, অভিযোগের উপর তদন্তের শুনানীকালে অধ্যক্ষের অতিরিক্ত টাকা নেয়ার সত্যতা পাওয়া গেছে।
জানাগেছে, হোমিওপ্যাথিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০১৩ সালের প্রথম ও চতুর্থ বর্ষের সমাপণী পরীক্ষা যশোর হোমিওপ্যাথিক কলেজে অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ব্যবহারিক পরীক্ষার ফিস ছাড়াও অতিরিক্ত এক’শ টাকা করে আদায় করেন অধ্যক্ষ আবু নসর। এ ব্যাপারে ২০ মার্চ শিক্ষার্থীরা হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল শিক্ষা বোর্ড ঢাকা এবং যশোর জেলা প্রশাসকের বরাবর লিখিত অভিযোগ করে। অভিযোগে বলা হয় কলেজের অধ্যক্ষ পরীক্ষার ফিস ছাড়াও শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৪৪ হাজার টাকা অতিরিক্ত আদায় করেছেন। বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক শিক্ষা বোর্ড অভিযোগের তদন্তের জন্য যশোর জেলা প্রশাসকের কাছে সুপারিশ করেন। এ ব্যাপারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলামকে আহবায়ক করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অপর দু’জন হলেন, প্রভাষক ডাক্তার খায়রুল বাসার ও গাজী জালাল উদ্দিন। মঙ্গলবার তদন্ত কমিটি হোমিওপ্যাথিক কলেজে অভিযোগের উপর শুনানী করেছেন।
এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটির আহবায়ক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম জানান, অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবহারিক পরীক্ষার ফিস ছাড়াও অতিরিক্ত টাকা নেয়ার বিষয়ে প্রথমিক সত্যতা পাওয়া গেছে। এ ছাড়া তিনি আরো জানান, অধ্যক্ষ তদন্তকালে হাজির না থাকায় ওই টাকা কোথায় কিভাবে ব্যয় হয়েছেন তা জানা যায়নি।

শেয়ার