নারায়ণগঞ্জ গেল প্রশাসনিক তদন্ত কমিটি

naraoin gonj
সমাজের কথা ডেস্ক॥ সাতজনকে তুলে নিয়ে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা তদন্তে হাই কোর্টের নির্দেশে গঠিত প্রশাসনিক কমিটির সদস্যরা নারায়ণগঞ্জ গেছেন এবং নিহতদের পরিবারের সঙ্গেও তারা কথা বলবেন।
কমিটির প্রধান জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. শাহজাহান আলী মোল্লাসহ সদস্যরা বৃহস্পতিবার বিকালে নারায়ণগঞ্জ গিয়ে প্রথমে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে যান।
শাহজাহান মোল্লা বলেছেন, তারা সাত দিনের মধ্যে তদন্তের অগ্রগতির প্রতিবেদন আদালতকে দেবেন।
নারায়ণগঞ্জের হত্যাকাণ্ডে র‌্যাবের সম্পৃক্ততার অভিযোগ ওঠার পর হাই কোর্ট পুরো ঘটনা তদন্তে সরকারকে একটি কমিটি গঠন করতে বলে।
ওই আদেশ অনুসারে বুধবার এই কমিটি গঠ্ন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. আব্দুল কাইয়ুম সরকার ও আবুল কাশেম মহিউদ্দিন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মো. শফিকুর রহমান ও সাঈদ মাহমুদ বেলাল হায়দার, আইন ও বিচার বিভাগের উপসচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান ও মো. মিজানুর রহমান খানকে কমিটির সদস্য করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার কমিটি বৈঠক করে তাদের কর্মপরিকল্পনা ঠিক করেন। এরপর বিকালে নারায়ণগঞ্জ রওনা হওয়ার আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন শাহজাহান মোল্লা।
তিনি বলেন, “নারায়ণগঞ্জের যে স্থানে লাশ পাওয়া গেছে, সে স্থান আজ পরিদর্শন করা হবে,শনিবার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলা হবে।”
গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জে কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজনকে অপহরণ করা হয়, তিন দিন পর শীতলক্ষ্যা নদীতে তাদের লাশ পাওয়া যায়।
এই হত্যাকাণ্ডে র‌্যাবের সম্পৃক্ততার অভিযোগ এবং এতে আইনশৃঙ্খলা বা প্রশাসনের কোনো কর্মকর্তার গাফিলতি ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখবে এই কমিটি।
কমিটি গঠনের সাতদিনের মধ্যে অগ্রগতির প্রতিবেদন দিতে বলেছে হাই কোর্ট।
মূল তদন্ত প্রতিবেদন কত দিনের মধ্যে দেয়া হবে- জানতে চাইলে শাহজাহান মোল্লা বলেন,“যত তাড়াতাড়ি সম্ভব তা দেয়া হবে।”
তদন্তে কোন বিষয়টি প্রাধান্য দেয়া হবে- সাংবাদিকদের এই প্রশ্নে তিনি বলেন, “কর্মপরিধিতে যা আছে তার মধ্যেই থেকে তদন্ত করা হবে হাই কোর্টের নির্দেশনায়।”
হাই কোর্ট গণতদন্তের মাধ্যমে নারায়ণগঞ্জের অপহারণ ও হত্যার সঙ্গে প্রশাসনের কোনো সদস্য বা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো সদস্যের প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ ভূমিকা ও সংশ্লিষ্টতা রয়েছে কি না, তা উদঘাটন করতে বলেছে।
অপহরণের খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অপহৃত ব্যক্তিদের জীবিত উদ্ধারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর কোনো অবহেলা বা ইচ্ছাকৃত গাফিলতি ছিল কি না, তাও খুঁজে বের করতে বলা হয়েছে।

শেয়ার