নাইজেরিয়ায় অপহৃতদের উদ্ধারে নেমেছে যুক্তরাষ্ট্র

naijeria
সমাজের কথা ডেস্ক॥ নাইজেরিয়ায় মুসলিম জঙ্গি গোষ্ঠী বোকো হারামের অপহৃত দুই শতাধিক স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার অভিযানে যোগ দিতে একটি বিশেষজ্ঞ দল পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।
সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তা, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও অন্যান্য সংস্থার প্রতিনিধিদের নিয়ে এ বিশেষজ্ঞদল গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।
স্কুলছাত্রী অপহরণের ঘটনা বোকো হারামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আন্তর্জাতিক মহলকে তৎপর করবে বলেও আশা প্রকাশ করেন ওবামা।
অপহরণের ঘটনাটি নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ক্ষোভের কারণে যুক্তরাষ্ট্র নাইজেরিয়া সরকারকে এ ব্যাপারে সহায়তা করার প্রস্তাব দেয়। মঙ্গলবার ওবামা প্রস্তাবটি গৃহীত হয়েছে বলে জানান।
তিনি বলেন, “আমরা ইতোমধ্যেই সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তা, আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও অন্যান্য সংস্থার প্রতিনিধিদের গঠিত একটি দল পাঠিয়েছি। ছাত্রীদেরকে কোথায় রাখা হয়েছে তারা তা খুঁজে দেখার চেষ্টা করবে”।
ওদিকে, নাইজেরিয়া সরকারও অপহৃতদের খোঁজ পেতে ৩ লাখ মার্কিন ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছে। অপহৃতদের ব্যাপারে কেউ তথ্য দিলে তাকে এ পুরস্কার দেয়া হবে।
পুলিশ এক বিবৃতিতে ছয়টি ফোন নাম্বার দিয়ে নাইজেরিয়াবাসীকে এসব নাম্বারে ‘বিশ্বাসযোগ্য তথ্য’ দিয়ে ফোন করার আহ্বান জানিয়েছে।
নাইজেরিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় বর্নো রাজ্যের একটি স্কুল থেকে গত মাসে প্রায় ২৩০ জন ছাত্রীকে অপহরণ করে বোকো হারাম জঙ্গিরা।
এরপর গত রোববার একই রাজ্যেরই আরেক গ্রাম ওয়ারাবে’ থেকে রাতের আঁধারে ১২ থেকে ১৫ বছর বয়সী আরো ৮ মেয়েকে অপহরণ করে তারা।
প্রথম দিকে বোকো হারামকে অপহরণের এ ঘটনার জন্য সন্দেহ করা হচ্ছিল। জঙ্গি সংগঠনটির নেতা আবুবকর শেকাউ সোমবার প্রথমবারের মত একটি ভিডিও বার্তায় স্কুলছাত্রীদেরকে অপহরণের কথা স্বীকার করেন। অপহৃতদেরকে বাজারে বিক্রি করার হুমকিও দেন তিনি।
“আমি আপনাদের মেয়েদেরকে অপহরণ করেছি। আল্লাহর ওয়াস্তে তাদেরকে বাজারে বিক্রি করে দেব। মেয়েদের স্কুলে যাওয়া উচিত না। বরং তাদের বিয়ে দেয়া উচিত। আল্লাহ আমাকে তাদেরকে বিক্রি করে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। তারা তাঁরই সম্পদ। আর আমি তাঁর আজ্ঞা পালন করব,” বলেন শেকাউ।
উগ্রপন্থি গোষ্ঠী বোকো হারামের নামের অর্থই “পশ্চিমা শিক্ষা হারাম।” বোকো হারাম জঙ্গিরা এর আগে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালালেও বিপুল সংখ্যক ছাত্রী অপহরণের ঘটনা সেটিই ছিল প্রথম।
অপহৃতদের হদিস এখনো না মেলায় নাইজেরিয়ার ভেতরে-বাইরে উদ্বেগ বাড়ছে। অপহৃতদের কাউকে কাউকে ক্যামেরুন এবং চাদের মতো প্রতিবেশী দেশগুলোতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে- এমন আলামত আছে বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রদপ্তরের কর্মকর্তারা।

শেয়ার