আদালতে থাই প্রধানমন্ত্রী

inlank
সমাজের কথা ডেস্ক॥ থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ইংলাক সিনাওয়াত ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগের বিরুদ্ধে আত্মপক্ষ সমর্থনের জন্য রাজধানী ব্যাংককের সাংবিধানিক আদালতে হাজিরা দিয়েছেন।
ইংলাক ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন বলে আদালতে অভিযোগ দাখিল করেছেন সিনেটররা। অভিযোগে বলা হয়েছে, ২০১১ সালে আপত্তিকরভাবে জাতীয় নিরাপত্তা প্রধানকে সরিয়ে দিয়ে ইংলাক দলীয় স্বার্থ হাসিল করেছেন।
নিরাপত্তা প্রধানকে সরিয়ে দেয়ার ওই পদক্ষেপে সংবিধান লঙ্ঘিত হয়েছে কিনা আদালত সেটিই খতিয়ে দেখবে।
ইংলাক মঙ্গলবার আদালতে হাজির হয়ে অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, “আমি কোনো আইন লঙ্ঘন করিনি। কোনো স্বার্থও হাসিল করিনি”।
বরং থাইল্যান্ডের স্বার্থেই জাতীয় নিরাপত্তা প্রধান থাভিল প্লিয়েনশ্রিকে সরানো হয়েছিল বলে দাবি করেন তিনি ।
দোষী সাব্যস্ত হলে ইংলাককে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দেয়া হতে পারে এবং ৫ বছরের জন্য তার রাজনীতি করা নিষিদ্ধ হতে পারে। বুধবারই আদালতের রায় শোনানোর কথা রয়েছে।
ইংলাকের সমর্থকদের ধারণা, আদালত তার বিপক্ষে কাজ করছে এবং এ মামলা তাকে ক্ষমতা থেকে সরানোরই প্রচেষ্টা।

শেয়ার