তরমুজে বিষক্রিয়া ছিল ব্যকটেরিয়ার

water melon
সমাজের কথা ডেস্ক॥ কুষ্টিয়া ও মানিকগঞ্জে তরমুজে ক্ষতিকারক উপাদান মেশানো হয়নি বলে জানিয়েছে রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর)।

প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক মাহমুদুর রহমান জানিয়েছেন, ন্যাশনাল ফুড টেস্টিং ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করে তরমুজে কোন ক্ষতিকর উপাদানের প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তবে অসুস্থদের শরীরে ই-কোলাই ব্যাক্টেরিয়ার উপাদান পাওয়া গেছে।

মাহমুদুর রহমান বলেন, গত ১৯ এপ্রিল কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে এ ঘটনা ঘটে। একটি তরমুজ খেয়ে ৩০ জন অসুস্থ হয়ে পড়েন।

তিনি বলেন, যে লোক তরমুজটি কেনেন, তিনি নরসিংদী থেকে ২৫০ টাকা দিয়ে তরমুজ কিনে কুষ্টিয়ায় বাড়িতে নেন। সেই রাতে তরমুজটি কাটা হয়নি। পরের দিন কাটা হয়েছে।
অসুস্থ ব্যক্তিরা বলেছেন, প্রথমে তাদের পেটে ব্যথা হয়। এরপরে ডায়রিয়া, বমি ও পানিশূন্যতা তৈরি হয়।

আইইডিসিআর’এর গবেষক দল ঘটনাস্থলে গিয়ে তরমুজের ফেলে থাকা কিছু অংশ পান। যারা খেয়েছে তারা বলেন, খাওয়ার সময় তাদের কাছে পচা মনে হচ্ছিল। এরপর ২০ এপ্রিল ৩০ জনই হাসপাতালের শরনাপন্ন হন। সেখান থেকে চিকিৎসকরা ৬ জনকে বাড়ি ফিরিয়ে দেন, ২৪ জনকে ভর্তি করান।

মাহমুদুর রহমান বলেন, তরমুজে কোন ক্ষতিকর উপাদান ছিল না। মূলত ই-কোলাই ভাইরাসের সংক্রমণে অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন তরমুজ খাওয়া ব্যক্তিরা। এছাড়াও এক ব্যক্তির শরীরে স্যালমনেল ভাইরাসের উপস্থিতি পাওয়া যায়।
মাহমুদুর রহমান জানান, নমুনা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে তরমুজে ক্ষতিকারক কেমিক্যালের কোনো অস্তিত্ব তারা পাননি।

এছাড়াও ২২ এপ্রিল একইভাবে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ায় ১১ জন একটি তরমুজ খেলে, তাদের মধ্যে ৯ জন অসুস্থ হয়ে পড়েন। এখানেও কোন ধরনের বিষাক্ত উপাদান মেশানো হয়নি বলে জানান তিনি।

শেয়ার