সিরিয়ায় বিদ্রোহীদের কোন্দলে ৬০ হাজার মানুষ ঘরছাড়া

Syria
সমাজের কথা ডেস্ক॥ সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে আল কায়েদাপন্থি বিদ্রোহীদের অভ্যন্তরীন কোন্দল ও সংঘর্ষের কারণে ৬০ হাজারেরও বেশি সাধারণ মানুষ ঘর বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছে। নিজেদের মধ্যে বিরোধ ও অন্তর্দ্বন্দ্বের কারণে বহু বিদ্রোহীও মারা গেছে বলে সিরিয়ার গৃহযুদ্ধ পর্যবেক্ষণকারী একটি মানবাধিকার সংগঠন জানিয়েছে।
প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদকে ক্ষমতাচ্যুত করার লক্ষ্যে লড়াইরত বিদ্রোহী দলগুলোর মধ্যে সাম্প্রতিক সময়ে ব্যাপক বিরোধ দেখা দিয়েছে। বিদ্রোহী প্রভাবাধীন অনেক এলাকায় নিজেদের মধ্যে খন্ড যুদ্ধে অনেক বিদ্রোহী যোদ্ধা মারা যাচ্ছে। ইসলামি চরমপন্থি ও অপেক্ষাকৃত উদারপন্থি বিদ্রোহীদের মধ্যে এতোদিন বিরোধ চলছিল। তবে দিয়ার আল জোর প্রদেশে প্রকৃতিক গ্যাস, তেল ও খনিজ সম্পদের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সংঘর্ষে জড়াচ্ছে বিদ্রোহীরা। বিদ্রোহীদের অন্তর্দ্বন্দ্ব সিরিয়ায় চলা তিন বছরের গৃহযুদ্ধে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। ব্রিটেন ভিত্তিক ‘সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস’ এর পর্যবেক্ষকরা শনিবার বলেন, আল কায়েদার সিরীয় শাখা আল নুসরাহ ফ্রন্ট সম্প্রতি ‘ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট’ (আইএসআইএল) এর কাছ থেকে আবিরাহ শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে। এ বছরের শুরুতে আল কায়েদার মূল নেতৃত্ব থেকে আলাদা হয়ে যায় আইএসআইএল। ওই এলাকায় গত চার দিনের সংঘর্ষে কমপক্ষে ৬২ জন বিদ্রোহী নিহত হয়েছে। আবিরাহ, আল বুসাইরাহ এবং আল জির শহর থেকে ৬০ হাজার বাসিন্দা পালিয়ে গেছে। গ্রাম তিনটি এখন জনশূন্য। আল কায়েদার শীর্ষ নেতা আয়মান আল জাওয়াহিরি বলেন, সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে আইএসআইএল অংশ নেয়ার পর তা ‘রাজনৈতিক বিপর্যয়ের’ সৃষ্টি করেছে। তাদের অনুপ্রবেশের কারণে সিরিয়ায় যুদ্ধরত ইসলামপন্থি দলগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দাবি করে তিনি আইএসআইএলকে সিরিয়া থেকে তাদের কার্যক্রম গুটিয়ে ইরাকে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ দেন।

শেয়ার