যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি নিয়ে তোলপাড়

jessore cantonment colleg
নিজস্ব প্রতিবেদক॥ হাইকোর্টের রুল নিষ্পত্তি হওয়ার আগেই যশোর ক্যান্টনমেন্ট কলেজে আবারও কর্মচারী নিয়োগ করতে যাচ্ছেন কর্তৃপক্ষ। এজন্য স্থানীয় পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। এদিকে, কলেজ কর্তৃপক্ষ বিধিবর্হিভূতভাবে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে দাবি করে চাকুরি প্রার্থীদের প্রতারণা থেকে সাবধান করেছেন হাইকোর্টে এ সংক্রান্ত রিটকারীদের আইনজীবী ব্যারিস্টার আবু মুসা মুহাম্মদ আরিফ।
জানা যায়, যশোর ক্যান্টেনমেন্টে কলেজে কর্তৃপক্ষের অনুমোদন ছাড়াই অনার্স কোর্স চালু ও ৬৫ শিক কর্মচারী নিয়োগ অবৈধ উল্লেখ করে ২০১৩ সালের ১ অক্টোবর হাইকোর্টে রিট করা হয়। কলেজের গণিত বিভাগের শিক আবদুল হামিদ ও ইংরেজি বিভাগের শিক নাজমুল হাসানের নেতৃত্বে সংুব্ধ ১৪ শিক আইনজীবী ব্যারিস্টার আবু মুসা মুহাম্মদ আরিফের মাধ্যমে রিট করলে কেনো অবৈধ ঘোষণা করা হবে না; তা জানতে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। একই সাথে কলেজের বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়ে চার সপ্তাহের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়। কিন্তু রুলের কোন নিষ্পত্তি না হওয়ায় ওই ৬৫ শিক্ষক কর্মচারীর ভাগ্যে এখনও ঝুলে রয়েছে। এরই মধ্যে ১ মে পুনরায় কর্মচারী নিয়োগের জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। আইনজীবী ব্যারিস্টার আবু মুসা মুহাম্মদ আরিফ জানান, ক্যান্টনমেন্ট অ্যাক্ট ১৯২৪ এবং ক্যান্টনমেন্ট সার্ভেন্টস রুলস ১৯৫৪ এর ৭ ও ৯ অনুসারে ক্যান্টনমেন্ট বোর্ড সমূহের অধীনস্ত প্রতিষ্ঠানে জনবল নিয়োগ হয়ে থাকে সামরিক ভূমি ও সেনানিবাস অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তি অনুসারে। কিন্তু এর আগেও নিয়মবহির্ভূতভাবে ৪৩ জন শিক ও ২২ জন কর্মচারী নিয়োগ করা হয়েছে। এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট করা হয়েছে। এটা নিষ্পত্তি হওয়ার আগেই কলেজ কর্তৃপক্ষ আবারও কর্মচারী নিয়োগ করতে যাচ্ছে। এতে চাকুরি প্রার্থীরা প্রতারিত হবে বলে তিনি আশংকা করছেন। তিনি স্থানীয় একটি দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দিয়ে চাকুরি প্রত্যাশীদের এবিষয়ে সতর্ক করেছেন।
এবিষয়ে কলেজের অধ্য বোরহানুস সুলতান বলেন, রিটের নিষ্পত্তি হয়নি ঠিকই। তবে জবাব দেয়া হয়েছে। এছাড়া কর্মচারী নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছেন কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি। বিষয়টি তিনিই ভাল বলতে পারবেন। তবে আইন অনুয়ায়ী বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়েছে বলে দাবি করেন অধ্যক্ষ।

শেয়ার