কালীগঞ্জে এশিয়ার বৃহৎ বটগাছের সরকারি রেস্ট হাউজ এখন নেশাখোরদের দখলে

bot gas
নিজস্ব প্রতিবেদক, (ঝিনাইদহ) কালীগঞ্জ॥ বিবিসির জরিপে ১৯৮২ সালে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে সুইতলা মল্লিকপুরের বটগাছটি এশিয়া মহাদেশের সর্ববৃহৎ হিসাবে স্বীকৃতি পায়। এরপর থেকেই এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে ও স্থানটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব বিবেচনা করে গাছটি সংরক্ষণের উদ্যোগ নেয় সরকার।
সরকারের পাশাপাশি এই ঐতিহাসিক স্থানটিকে রক্ষায় এগিয়ে আসেন স্থানীয়রা। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯০ সালে গাছটির চারপাশ দিয়ে ১১ একর (৩৩) বিঘা জমির উপর দেওয়া হয় সীমানা প্রাচীর। গাছের পাশে প্রায় ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয় একটি রেষ্ট হাউজ। দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে গাছের জন্য সংরক্ষিত এলাকায় পাকা বেঞ্চ ও গার্টেন ছাতা সংযোজন করা হয়। রেষ্ট হাউজ নির্মিত হওয়ার পর বটগাছের পাশে ১৬৯ মৌজার ১৬নং দাগে ৩২ শতক জমি মল্লিকপুরে গ্রামের মৃত জহুর আলী বিশ্বাসের স্ত্রী কুন্টি বিবি ২৫/০৪/৯০ ইং তারিখে ঝিনাইদহ জেলা পরিষদের নামে দানপত্র লিখে দেন। সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ চেয়াম্যান শওকতুল ইসলাম ঐতিহ্যবাহী স্থানটির সৌন্দর্য বৃদ্ধি ঘটাতে গাছের নীচে বিভিন্ন ফুলের গাছ রোপন করেন। কিন্তু সরকার এসব দেখভালের জন্য কোন লোক নিয়োগ করেনি। দীর্ঘদিন অরক্ষিত থেকে সরকারি টাকায় নির্মিত রেস্ট হাউজটি আজ নেশাখোরদের দখলে চলে গেছে। নেশাখোরেরা রেষ্ট হাউজের জানালা দরজা লোহার গ্রীল সবই কেটে নিয়ে গেছে। রেস্ট হাউজটি এখন পরিত্যাক্ত। এছাড়া এলাকার প্রভাবশালী মহল রাতে গাছের বড় বড় ডালপালা পর্যন্ত কেটে নিয়ে যায়। মানুষের নানাবিধ অত্যাচারে সৌন্দর্যবর্ধনকারী এই বটগাছটি আজ তার সৌন্দর্য ও ঐতিহ্য হারাতে বসেছে। এভাবে চলতে থাকলে এশিয়াবাসীর গর্ব এই বৃহৎ বট গাছটি আর কতদিন তার আপন ঐতিয্য ও সোন্দর্য ধরে রাখতে পারবে তা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছেন সুইতলা-মল্লিকপুরবাসী।

শেয়ার